WB-story

ভালোবাসার  মূল্য

(Last Updated On: ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৭)

জমির হোসেন.ভালোবাসা মানেই হৃদয় কম্পন এক অনুভূতি। একটু কবি কবি ভাব। প্রান্তর থেকে প্রান্তরে নিমিষে উধাও হয়ে যাওয়া। পড়ন্ত বিকেলে সূর্যাস্তের সময় এক পলকে তাকিয়ে থাকা আর মনের গহিনে লুকিয়ে থাকা যতো সব ভাবনাকে অনুকূলে পাওয়া। বেলা-অবেলায় ভাবুক হওয়া। বিদ্যাপীঠ জীবনে উন্নত অবনত হওয়ার সঠিক পথ বেছে নেয়া। পার্থিব এই পৃথিবীতে প্রতিটি মানুষের মনে ভালোবাসা আছে। এক একজনের মনের ভেতরে ভিন্ন ভিন্ন ভালোবাসার সৃষ্টি হয় খোদাই তরফ থেকে। তাই তো মনস্কামনাও ভিন্নভাবে দেখা যায়। ভালোবাসা আছে বলেই পৃথিবীতে সুখ-শান্তি সংসার জীবন আছে। তবে আধুনিকতার ছোঁয়ায় ভালোবাসা এখন অনেকটাই নরমাল ফেক্ট হয়ে গেছে। যা মানুষের মাঝে ইমোশনাল রূপে দেখা যায়। ফলে প্রকৃত ভালোবাসার মূল্যবোধ এখন আর দেখা যায় না। মমতাবোধ, শ্রদ্ধাবোধ ও বিশ্বাস ভালোবাসার প্রধান ঘাটতি। যার কারণে ভালোবাসার পর সংসার বাঁধার পরে সংসার জীবনে দৃঢ়তা নেই বললেই চলে। এমনকি গড়তে আর ভাঙতে মাঝখানে বৈরি হাওয়া বইতে যে সময়। তবুও থেমে নেই নানা রঙের ভালোবাসা। কারো ভালোবাসা শুরু আর কারো আবার শেষ। এভাবেই ভালোবাসার বিকৃত আকার ধারণ করে মানুষের মাঝে। আর কখনো কখনো ভালোবাসার অপমৃত্যু হয়। কিন্তু এতো কিছুর পরও ভালোবাসা অমর হয়ে রয়। যেমনটা লাইলী-মজনু, শিরি-ফরহাদ এবং রোমিও-জুলিয়েট। তারা সত্যিকার ভালোবাসার একটি মডেল। যা পৃথিবীর বুকে অগ্রজদের ভালোবাসার জন্যে একটি সুনির্দিষ্ট পথরেখা। ভালোবাসার উৎপত্তি যেভাবেই হোক না কেন তারা প্রতি সুদৃষ্টি ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রেখে তার মূল্য দিতে হবে। আমাদের সবার জানা আছে, ইতালির পর্যটন কেন্দ্র ভেরনার কথা। ভালোবাসার বিরল ইতিহাস যেখানে রয়েছে দুই তরুণীর বিশ্ব বিখ্যাত ভালোবাসার কাহিনী। বিশ্বখ্যাত নাট্যকার, কবি উইলিয়াম সেঙ্পিয়র নাটকের মাঝে রোমিও-জুলিয়ৈটের পারিবারিক দ্বন্দ্ব, ভালোবাসার দুঃখজনক ঘটনা তুলে ধরে আরো বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করেন। সেই প্রেমিক-প্রেমিকা রোমিও এবং জুলিয়েট। তাদের জন্যে ইতালির ভেরনা শহরে। পারিবারিক দ্বন্দ্ব থাকা সত্ত্বেও তারা একজন আরেকজনকে ভালোবেসেছেনে শেষ ঠিকানায় যাওয়ার আগ পর্যন্ত। যে ভালোবাসা বিশ্বের মাঝে তোলপাড় সৃষ্টি করে। এখনো তাদের ভালোবাসার কিছু দৃশ্য দেখতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে পর্যটন এসে ভিড় করে ভেরনা শহরে। এই ভালোবাসার কাহিনী লিখে অনেক লেখক, কবি, জনপ্রিয়তার তুঙ্গে চলে গেছেন। রোমিও-জুলিয়েটের ভালোবাসা নিয়ে ১৫৬২ সালে বর্ণনামূলক কাব্য লিখে জনপ্রিয়তা লাভ করেন ইংরেজি কবি আর্থার ব্রুক। পর্যায়ক্রমে বহু লেখক রোমিও এবং জুলিয়েটের ভালোবাসা নিয়ে লিখে লেখক হিসেবে একটি শক্ত অবস্থান তৈরি করেন। ভালোবাসার মূল্য নিয়ে সারসংক্ষেপ তুলে ধরতে চেষ্টা করেছি । ভালোবাসা পবিত্র তাই এর মূল্য দিতে হলে চাই হৃদয়পূর্ণ আন্তরিক সহমর্মিতা। বর্তমান ভালোবাসা অনেকটা ফুটবল খেলার মতোই।

 

খেলা শুরু হয় সময়ের এক পর্যায়ের আবার শেষ হয়। অনেক ক্ষেত্রে চড়ই আর উৎরাই। এই আছে তো এই নেই। টেকনোলজি যখন অনেক এগিয়ে ঠিক তখন সত্যিকারের ভালোবাসার অকাল চলছে। যার ফলে টেকসই কম। তাছাড়া অনেকটা চায়নার ওয়াম টাইম খেলনার মতো আমাদের ভালোবাসা। পূর্বের ভালোবাসা অন্ধকারে আলো ছড়াতে আর এখন ভালোবাসা আলো দিয়ে শুরু হলেও পরিণতি শুধু অন্ধকারে ঠেলে। মানুষের মাঝে যখন বিশ্বাস লোপ পেতে শুরু করেছে সেদিন এ জগৎ থেকে পবিত্র ভালোবাসার পচন ধরা শুরু করেছে। তাই ভালোবাসা এখন আর ভালোবাসা নেই। ভালোবাসা মানে টাইম পাস!

 

লেখক : সংবাদকর্মী, ইতালি প্রবাসী।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.