লাকসাম-মনোহরগঞ্জে জলাবদ্ধতার শিকার মানুষ

(Last Updated On: জুলাই ৬, ২০১৭)

সেলিম চৌধুরী হীরা ,কুমিলার লাকসামে ৩/৪ দিন টানা বর্ষণে নিম্না লে মারাত্মক জলাবদ্ধতায় সৃষ্টি হয়েছে খাল, পুকুর, ডোবা, নদীসহ জনবসতি পূর্ন এলাকাগুলোতে। উপজেলায় এ জলাবদ্ধতার কারনে  দূর্ভোগ চরমে উঠেছে। অবনর্নীয় দূভোর্গ পোহাতে হচ্ছে এ অ লের কয়েক লাখ মানুষকে।  জলাবদ্ধতা দূরীকরনে লাকসাম পৌর কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি শত কোটি টাকা ব্যয়ে নানামুখী উন্নয়ন কর্মকান্ড এবং শহরের প্রধান প্রধান স্থানে ডাকাতিয়া নদী সংযুক্ত ড্রেনেজ প্রকল্পের কাজ শেষ করেছে। এছাড়া নাগরিক সুবিধা বাড়াতে আগামী কিছুদিনের মধ্যে আরো ব্যাপক উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে।
এ দিকে একমাত্র ডাকাতিয়া নদীসহ প্রায় অর্ধশতাধিক খাল জবর দখলসহ ভরাট হয়ে যাওয়ায় পানি নামার কোন জায়গা নেই। ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে মানুষ অনেকটা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। প্রায় এলাকার মানুষ বর্ষাকালে জলাবদ্ধতার কারনে হাটে-বাজারে যেতে পারে না।  ডাকাতিয়া নদীসহ সংযোগ খালগুলো এ উপজেলার পানি নিষ্কাশনের একমাত্র মাধ্যম। চাইলতাতলী, ফতেপুর, ঘাগৈর, বেরুলা, কার্জন, মেলা, কুচাইতলী ও ছিলনিয়া খালের অবস্থা বর্তমানে অস্তিত্ব সংকটে। ওইসব খালগুলো জবর দখল ও ভরাট হয়ে যাওয়ায় পানি প্রবাহ গতিহীন। তার উপর ময়লা আবর্জনাসহ জলাবদ্ধ হয়ে এ অ লের বিশুদ্ধ পানির ব্যবহার মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়ে নানাহ রোগের আতংকে রয়েছে সকল পেশার মানুষ। ইতিমধ্যে খালের উপর ব্রীজ ও কালভাটগুলোর প্রবেশ পথ বন্ধ হয়ে গেছে।   পৌর এলাকাসহ উপজেলার ওইসব গ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে অতীতে সংশিষ্ট প্রশাসন তেমন কোন প্রদক্ষেপ না নেওয়ায় চলমান বর্ষাকালে এলাকার জনজীবন মারাত্মক হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে। প্রত্যেক বছর বর্ষাকালের এ সময়ে এলাকার মানুষ জলাবদ্ধতার সম্মুখিন হতে হয়। স্থানীয় প্রশাসন জবরদখলকারী ও নদী-খালের ভরাট নিরসনে কার্যকরী কোন প্রদক্ষেপ না নিলে, আগামী দিনগুলোতে  মানুষের দূর্ভোগ আরো চরম আকার ধারন করবে। খাল- নদী, পুকুর-ডোবা ও জলাশয়ের উপছে পড়া পানিতে এলাকার বাড়ী-ঘরে পানি ঢুকে এলাকার পরিবেশ মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়বে। এছাড়া কাঁচা-পাকা সড়কের অবস্থা অত্যান্ত নাজুক। শহর এলাকার নদী,খাল ও ড্রেনেজ দিয়ে পানি নামতে না পারলে এলাকার জন দূর্ভোগ আরো কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।
এ ব্যাপারে লাকসাম পৌর মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের বলেন, অতি বৃষ্টির কারনে সারা বাংলাদেশে এখন কিছুটা জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। তবে এ জলাবদ্ধতা সাময়িক, স্থায়ী কোন জলাবদ্ধতা এখনো সৃষ্টি হয়নি, আমরা দৃষ্টি রাখছি যেন কোন ভাবেই স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি না হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.