৪৪ বছরেও নির্মিত হয়নি সৈয়দপুরবাসীর স্বপ্নের মধুমতি সেতু

(Last Updated On: নভেম্বর ১৯, ২০১৭)

 স্বাধীনতার ৪৪ বছরেও নির্মিত হয়নি সৈয়দপুরবাসীর স্বপ্নের মধুমতি সেতু মো.শাখাওয়াত হোসেন সজল,সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) থেকে: স্বাধীনতার পর থেকেই মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার সৈয়দপুরের মধুমতী নদীর উপড় সেতু নির্মানের দাবী জানিয়ে আসছে সৈয়দপুরবাসী।নির্বাচন এলে জনপ্রতিনিধিরা সেতুটি নির্মানের প্রতিশ্রুতি দিলেও নির্বাচিত হয়ে প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেনি বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

শুধু প্রতিশ্রুতি শুনে স্বাধীনতার ৪৪ বছর পরেও বাস্তবায়ন হনি সৈয়দপুর বাসীর প্রানের দাবী সৈয়দপুর বাজারের মধুমতী নদীর উপর সেতুটি। স্বাধীনতার পর থেকে বিভিন্ন সময়ে সংসদ সদস্য, উপজেলার চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যানরা প্রতিশ্রুতি দিলেও সে স্বপ্নের সেতুটি আজও বাস্তবে রুপ নেয়নি।সেতুর বাস্তবায়নের স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেছে এলাকাবাসীর কাছে।

এলাকাবাসীর উদ্যোগে প্রতি বছর বাঁশের সাঁকো নির্মান করে ৪ টি ইউনিয়নের দশ হাজার লোক চরম ঝুঁকি নিয়ে বছরের পর বছর চলাচল করছে। সরজমিনে গিয়ে জানাযায, সৈয়দপুর বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া মধুমতী নদী,আর এই নদীর উপর বাঁশের সাঁকো দিয়ে বছরের পর বছর যাতায়েত করছে ফুলহার, য়ৈদপুর, বাঐখোল, মধুপূর , রাজানগন, তেঘরিয়া,খালপাড়,চিত্রকোর্ট সহ ১৫ গ্রামের মানুষ। এই বাঁশের সাঁকো পার হতে গিয়ে স্কুল, কলেজে ও মাদ্রসার ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিনিয়তই দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে কোমল মতি শিশুরা সহ অনেকেই।

সৈয়দপুর বাজারের দোকানদার ইলিয়াস চৌধুরী জানান, বিভিন্ন সময় সাঁকো থেকে পড়ে গিয়ে ঘটছে দূঘটনা কিছুদিন আগেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকা সাকো থেকে পানিতে পড়ে গিয়ে আহত হয় । দূর্ঘটনা থেকে রেহাই পায়নি ৬০ বছরের বয়স্ক মহিলা হালিমা বেগম । রাজানগর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন হাদী জানান, এই ব্যাপারে তিনি খুব তৎপর,নিয়োমিত উপজেলা প্রকৌশলির সাথে যোগাযোগ করছেন ,তারা পরিক্ষা নীরিক্ষা কাজ শুরু করার ব্যপাওে আমাকে আস্বস্ত করেছেন। তবে কবে নাগাদ কাজ শুরু হবে নিদৃষ্ট করে বলেনি। উপজেলার প্রকৌশলি শোয়াইব আজাদ জানান, আমি এই উপজেলায় নতুন যোগদান করেছি। আমি ফাইলটি ক্ষতিয়ে দেখে আপনাদের জানাব।সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে দ্রুত সেতুটি নির্মানের দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.