italy , bd

ইতালিতে বাংলাদেশি প্রতারক যুবক আটক

(Last Updated On: নভেম্বর ২৬, ২০১৭)

মনিরুজ্জামান মনির: প্রবাসের নানান জটিলতা যখন আঁকড়ে ধরে, তখন প্রবাসীরা উপায় না পেয়ে আশ্রয় নেয় প্রতারকদের কাছে আর সেই সুযোগে তারা হাতিয়ে নেয় অর্থ। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সেই প্রতারকদের কোন হদিস না পাওয়া গেলেও  এবার ইতালির রোমে বাংলাদেশ দূতাবাসে এমন ঘটায় রক্ষা পায়নি অভিযুক্ত প্রতারক আলী আহম্মদ রনি।

প্রতারক রনির বাড়ি সিলেটের বিয়ানীবাজার এলাকায় ,কয়েক বছর ধরে তার বসবাস রোম শহরে।
ফেসবুকে বেশ প্রচার – অপপ্রচারে যখন প্রবাসীরা বিভ্রান্ত, তখন রোম দূতাবাসের প্রথম সচিব এরফানুল হক এর সাথে ফোনে কথা হয়। তিনি বিস্তারিত জানান সেদিনের আসল ঘটনা …
সময় আনুমানিক সকাল ১১টা, তারিখ ২৩ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রোমের দূতাবাসের নীচ থেকে কয়েকজন লোক আলী আহম্মদ রনি নামের একজকে ধরে নিয়ে আছে কাউন্টারের সামনে; রনি বিরুদ্ধে অভিযোগ, পাসপোর্ট বের করে দিবে বলে তাদের কাছ থেকে ৩১০ ইউরো নিয়েছে। এবং আজকে রনি পাসপোর্ট তাদের হাতে দিবে আরও ৩৩০ ইউরোর বিনিময়ে। তবে এমন অভিযোগ রণি প্রথমে অস্বীকার করলেও অর্থ নেয়ার কথা স্বীকার করে এবং এক সময় তা ফিরিয়েও দেয়। এপর্যন্ত সব ঠিক থাকলেও সমস্যা আরও জটিল আকার ধারণ করে যখন উপায় না পেয়ে রনি নিজের পরিচয় গোপন করে এবং জানায় সে ইতালীয়ান পাসপোর্টধারী ও তার এ ঘটনার সাথে এ্যাম্বাসীর লোক জড়িত।
তখন দূতাবাস কতৃপক্ষ তার ইতালীয়ান পাসপোর্ট ও ডকুমেন্টস দেখতে চায় কিন্তু তা দেখাতে পারেনি আলী আহম্মদ রনি, এমন কি তার রোমের ঠিকানাও দিতে পারেনি। এরপর জানতে চায় কে সেই লোক যে এই ঘটনার সাথে জড়িত?? এসময় যার নাম বলা হয় সে অস্বীকার করে বলে এ বিষয়ে রণির সাথে তার কোন প্রকার লেনদেন নেই, তবে রনি দাবী করে তার কাছে প্রমান আছে। বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তার উপর আনিত অভিযোগ যাচাই করা কতৃপক্ষ দাঁয়িত্ব আর সে লক্ষ্যেই দূতাবাস থেকে বলা হয় কালকের মধ্যে প্রমান নিয়ে দূতাবাসে আসেন এবং এমন কাউকে ফোন করেন যে আপনার অভিভাবক হয়ে দাঁয়িত্ব নিয়ে কালকে প্রমান সহ দূতাবাসে আপনাকে হাজির করবে। রনি তখন কয়েক জনকে ফোন করলেও শেষ পর্যন্ত তার দাঁয়িত্ব কেউ নিতে আসেনি। তখন রনির সর্ম্পকে সঠিত তথ্য জানতে ইতালীয়ান প্রশাসন (ক্যারাবিনিয়ারী পুলিশকে) খবর দিতে বাধ্য হয় এবং সাময়িক ভাবে অভিযুক্ত প্রতারক আলী আহম্মদ রনি‘কে পুলিশ নিয়ে যায়।

এঘটনাকে কেন্দ্র করে যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের বাংলাদেশ দূতাবাস সম্পর্কে একটি মহল (রনির যাদের সাথে যোগাযোগ রয়েছে) অপপ্রচারে বলা হয় দূতাবাসের কর্মকর্তাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে কিন্তু দূতাবাস কর্মকর্তা জানায় ‘পুলিশ তো অভিযুক্ত অপরাধীকে গ্রেফতার করবে, দূতাবাসের কর্মকর্তাকে কেন হয়রানী করতে যাবে??

সূত্র – সময় নিউজ

Print Friendly

Comments

comments

২ comments

  1. 291189 886377I dont agree with this particular write-up. Nevertheless, I did researched in Google and Ive identified out which you are correct and I had been thinking in the incorrect way. Continue producing quality material comparable to this. 949965

Leave a Reply

Your email address will not be published.