৯৯৯-এ ফোনে বাল্যবিবাহ বন্ধ, ধর্ষক গ্রেপ্তার

(Last Updated On: ডিসেম্বর ১৫, ২০১৭)

প্রথম আলো: সরকারের টোল ফ্রি ‘৯৯৯’ নম্বরে ফোন করে তথ্য দেওয়ায় একটি বাল্যবিবাহ বন্ধ ও ধর্ষণের অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া ও গাজীপুরের জয়দেবপুরে পৃথক এই দুটি ঘটনা ঘটেছে। গত ১২ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ‘৯৯৯’ এ জরুরি সেবা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়। এরপরই বিভিন্ন স্থানে এর ব্যবহার শুরু হয়েছে।

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি জানান, গতকাল বুধবার রাত ১২টার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের দক্ষিণ নিশ্চিন্তপুর গ্রামে একটি বাল্যবিয়ের আয়োজন চলছিল। খাওয়ার পর ওই কিশোরীর হাতে মেহেদি লাগানো হচ্ছিল। এমন সময় সেখানে হাজির হয় পুলিশ। ‘৯৯৯’ এ ফোন কল পেয়ে বিয়ের আয়োজন বন্ধ করে দেওয়া হয়। বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পায় ১৩ বছরের কিশোরী। আজ বৃহস্পতিবার তার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।

এ বিষয়ে ‘৯৯৯ এর একটি ফোন কল, অতঃপর বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ’ শিরোনামে রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের ভূঞা আজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। তিনি তাঁর স্ট্যাটাসে ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ লিখে বাংলাদেশ পুলিশের ‘৯৯৯’ সার্ভিসের কল্যাণে কিশোরীর বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা ও সবাইকে টোল ফ্রি সার্ভিসটির সেবা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

ওসি ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের  বলেন, রাতে ‘৯৯৯’ থেকে সংবাদদাতা তাঁর পরিচয় গোপন রেখে বাল্যবিয়ের খবরটি জানান। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি পুলিশের একটি দল ওই এলাকায় পাঠিয়ে বিয়েটি বন্ধ করে দেন। একই এলাকার প্রতিবেশী একজনের সঙ্গে তার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। তবে ওই কিশোরী বিয়েতে রাজি ছিল না।

এদিকে, গাজীপুরে এক শারীরিক ও বাক প্রতিবন্ধী তরুণীকে (৩০) ধর্ষণের অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্থানীয় একজন ‘৯৯৯’ এ ফোন করে ঘটনাটি জানায়। পরে গাজীপুর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই তরুণীকে উদ্ধার এবং আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকায়।

গ্রেপ্তারকৃত হলেন ভোলার তজুমদ্দিন থানার লামসি শ্যামপুর গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে মো. আলাউদ্দিন (৪০)। পুলিশ জানায়, গাজীপুরে ওই তরুণীর পরিবারে একটি বিয়ের আয়োজন চলছিল। এ উপলক্ষে সেখানে আত্মীয়-স্বজনেরা আসে। রাতে এক সময় আলাউদ্দিন ওই তরুণীর ঘরে ঢুকে তাঁকে ধর্ষণ করেন। এ সময় তাঁর কান্নার শব্দ শুনে পাশের লোকজন এসে তাঁকে উদ্ধার করে। বিষয়টি পরিবারের লোকজন গোপন রাখার চেষ্টা করে। কিন্তু স্থানীয় একজন ‘৯৯৯’ এ ফোন করে ধর্ষণের ঘটনাটি জানায়। তাৎক্ষণিকভাবে জয়দেবপুর থানা-পুলিশ অভিযান চালিয়ে তরুণীকে উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পাঠায়। সেই সঙ্গে ধর্ষণের অভিযোগে আলাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার তরুণীর মা বাদী হয়ে আলাউদ্দিনকে আসামি করে জয়দেবপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

গাজীপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, গত ১২ ডিসেম্বর ‘৯৯৯’ জরুরি সেবা হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়। কিন্তু এর আগে থেকেই আমরা গাজীপুরে এর প্রচারণা চালিয়েছি। এ ছাড়া জেলার পুলিশ সদস্যদের বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। যাতে জরুরি সেবার ফোন এলে গুরুত্ব সহকারে দেখা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ওই ফোনটি ছিল উদ্বোধনের পর গাজীপুরে প্রথম কল। কলটি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

গত ১২ ডিসেম্বর ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পুলিশি সেবা পেতে জাতীয় হেল্প ডেস্ক হিসেবে জরুরি সেবায় ৯৯৯ নম্বর চালু করা হয়।

টোল ফ্রি হিসেবে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে নাগরিকেরা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স-সেবা নিতে পারবেন। এ জন্য গ্রাহকের কোনো রকম খরচ লাগবে না। কোনো অপরাধ ঘটতে দেখলে, প্রাণনাশের আশঙ্কা দেখা দিলে, কোনো হতাহতের ঘটনা চোখে পড়লে, দুর্ঘটনায় পড়লে, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে, জরুরিভাবে অ্যাম্বুলেন্সের প্রয়োজন হলে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সাহায্য চাওয়া যাবে। মোবাইল ফোন ও টেলিফোন উভয় মাধ্যমে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করা যাবে।

প্রথম আলো.

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.