নেতৃত্বশূন্য চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ

(Last Updated On: ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮)

সমকাল:  সবাইকে কাঁদিয়ে বিদায় নিয়েছেন চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের রাজনীতির প্রাণপুরুষ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। এর ফলে বন্দর নগরীতে দলটির নেতৃত্বে শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্নিষ্টরা মনে করেন, মহিউদ্দিনের মৃত্যুতে চট্টগ্রামবাসী দরদি একজন অভিভাবককে হারিয়েছে। কিছুতেই এ শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়। এর পরও ঘুরেফিরেই একটি প্রশ্ন সামনে আসছে- কে হচ্ছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি। আর কেইবা হবেন চট্টগ্রামের নতুন কাণ্ডারি।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজন বলেন, মহিউদ্দিন চৌধুরীর অভাব আমরা পদে পদে অনুভব করব। তার পরও সময়ের প্রয়োজনে হয়তো দলে নতুন নেতৃত্ব উঠে আসবে। এ বিষয়ে দলের হাইকমান্ড চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কমিটি গঠিত হয়। এতে এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে সভাপতি ও আ জ ম নাছির উদ্দীনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। পরে ওই কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেওয়া হয়। ৯ জনকে করা হয় সহসভাপতি। তারা হলেন মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, নঈমুদ্দিন চৌধুরী, সুনীল সরকার, ডা. আফছারুল আমীন, সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম বিএসসি, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, সুনীল সরকার ও আলতাফ হোসেন বাচ্চু। তাদের মধ্যে মাহতাব উদ্দিনসহ কয়েকজন সহসভাপতি শারীরিকভাবে অসুস্থ।

নগর আওয়ামী লীগের  একাধিক দায়িত্বশীল নেতা জানান, বিভিন্ন সময়ে দলের হাল ধরতে আগ্রহ দেখিয়েছেন সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমানে গণশিক্ষা বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. আফছারুল আমীন এবং প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি। এর বাইরেও সম্ভাব্য আরও কয়েকজন নেতা রয়েছেন। তাদের মধ্য থেকে কাউকে বেছে নেওয়া হতে পারে। নিয়ম অনুযায়ী, সহসভাপতিদের মধ্যে যিনি জ্যৈষ্ঠ তিনিই ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দলের হাইকমান্ড চাইলে নতুন কাউকেও সেই দায়িত্ব দিতে পারেন।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, চট্টগ্রাম মহানগরীতে মহিউদ্দিন চৌধুরীকে ঘিরেই আওয়ামী লীগের রাজনীতি আবর্তিত হতো। দলে তার রয়েছে বড় একটি সমর্থক গোষ্ঠী। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দল ও চট্টগ্রামের স্বার্থসংশ্নিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিরোধও দেখা দেয়। মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে তার অনুসারী নেতাকর্মীদের মধ্যেও শঙ্কা তৈরি হয়েছে। গণমানুষের অধিকার আদায় ও দলের নেতৃত্ব নিয়ে তারাও উদ্বিগ্ন।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর জানাজায় অংশ নিতে গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রামে আসেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীমসহ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা। তবে নতুন দায়িত্ব নিয়ে তাদের সঙ্গে চট্টগ্রামের সংশ্নিষ্ট নেতাদের কোনো আলাপ-আলোচনা হয়নি বলে জানা গেছে। শোকের রেশ না কাটা পর্যন্ত এ বিষয়ে জ্যেষ্ঠ নেতারা কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চান না। এর পরও বিষয়টি নিয়ে দলের সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে কৌতূহলের শেষ নেই।

নগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক বলেন, দলের হাইকমান্ড যোগ্য নেতা বাছাই করে ওই পদে কাউকে দায়িত্ব দিতে পারেন। তবে নগর আওয়ামী লীগের সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে। সভায় সাময়িক কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য সহসভাপতিদের মধ্যে কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।

সমকাল…

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.