image-28634

৩০নভেম্বর পর্যন্ত ইউরোপে আশ্রয় চেয়েছে ২০ হাজার বাংলাদেশি

(Last Updated On: ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭)

এ বছরের শুরু থেকে গত ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সাগরপথে অবৈধভাবে ইতালিতে পাড়ি জমানো এক লাখ ১৭ হাজার ৩৬ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীর মধ্যে ৮ শতাংশ বাংলাদেশি। ইউরোপে অবৈধভাবে অভিবাসন বিষয়ে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের তথ্য এটি।

অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) তথ্য-উপাত্ত থেকে জানা যায়, গত এক বছরে অন্তত ২০ হাজার ৫৫ জন বাংলাদেশি ইইউর সদস্য দেশগুলোয় প্রথমবারের মতো আশ্রয়ের আবেদন করেছে।

জানা গেছে, এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে বাংলাদেশি আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে তিন হাজার ৮২৫ জনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে আশ্রয়ের আবেদন মঞ্জুর হয়েছে ৬৭৫ জনের। আবেদনপত্র প্রত্যাখ্যাত হয়েছে তিন হাজার ১৫০ জনের। যাদের আবেদন মঞ্জুর হয়নি বা হবে না, তাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ইইউর জোরালো সিদ্ধান্ত রয়েছে।

২০১৬ সালের তৃতীয় প্রান্তিক (জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর) থেকে এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত ইইউর সদস্য ২৮টি দেশে প্রথমবারের মতো আশ্রয় চেয়েছে ছয় লাখ ৮৭ হাজার জন, যারা ইউরোপীয় নয়। আশ্রয়প্রার্থীদের উৎস দেশের তালিকায় বাংলাদেশ অষ্টম স্থানে আছে। তালিকায় শীর্ষে থাকা সিরিয়ার আবেদনকারীর সংখ্যা এক লাখ পাঁচ হাজার ৭০৫ জন। এরপর আছে যথাক্রমে ইরাক (৪৭ হাজার ৮৮০), আফগানিস্তান (৫৪ হাজার ৪৫৫), নাইজেরিয়া (৪৫ হাজার ৬০০), পাকিস্তান (৩১ হাজার ২৭০), ইরিত্রিয়া (২৮ হাজার ৪৪০) ও আলবেনিয়া (২৪ হাজার ২৯০)।

সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের প্রায় সবাই লিবিয়া থেকে সাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে ঢুকেছে। লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে অভিবাসী বাংলাদেশিদের অনেকেই দেশে না ফিরে অবৈধভাবে ইউরোপে যাওয়ার পথ বেছে নিয়েছে। আবার দেশি-বিদেশি মানবপাচারকারীচক্র বড় অঙ্কের অর্থের বিনিময়েও বাংলাদেশ থেকে লিবিয়া হয়ে ইউরোপে পাঠিয়েছে অনেককে। গত মাসে সিএনএন মানবপাচারকারীদের তৎপরতা তুলে ধরেছে।

ইইউর তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর—এ তিন মাসে চার হাজার ৮৩৫ জন বাংলাদেশি ইইউর কোনো না কোনো দেশে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করেছে। গত বছরের জুলাই থেকে ধারাবাহিক আবেদনের সংখ্যা থেকে জানা যায়, কোনো মাসেই এ সংখ্যা হাজারের নিচে নামেনি। গত বছর সেপ্টেম্বরে আশ্রয়ের জন্য আবেদনকারী বাংলাদেশির সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৯০ জন।

বাংলাদেশিরা সুনির্দিষ্টভাবে ইইউভুক্ত কোন দেশে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করছে তার একটি ধারণা পাওয়া যায় তৃতীয় প্রান্তিকের তথ্য-উপাত্ত থেকে। এ সময়ের মধ্যে আশ্রয়ের জন্য বাংলাদেশিদের ৬৩ শতাংশই ইতালিতে আবেদন করেছে। আশ্রয়প্রত্যাশী বাংলাদেশিদের ইতালির পর পছন্দের দেশগুলো যথাক্রমে ফ্রান্স (১৩%), যুক্তরাজ্য (১০%), গ্রিস (৮%) ও জার্মানি (২%)। বাংলাদেশিদের বাকি ৫% ইইউর অন্য দেশগুলোতে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করেছে।

জানা গেছে, এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে বাংলাদেশি আশ্রয়প্রার্থীদের আশ্রয়ের আবেদন মঞ্জুর হয়েছে ৬৭৫ জনের। এর মধ্যে ১৬০ জন পেয়েছে শরণার্থী মর্যাদা। অর্থাৎ বাংলাদেশি আবেদনকারীদের মাত্র ৫ শতাংশ শরণার্থী মর্যাদা পেয়েছে। ৪৫ জন সম্পূরক সুরক্ষা পেয়েছে। মানবিক কারণে আশ্রয় পেয়েছে ৪৭০ জন। আবেদনপত্র নাকচ হয়েছে তিন হাজার ১৫০ জনের।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, জাতি, বর্ণ, ধর্ম, জাতীয়তা, কোনো বিশেষ সামাজিক গোষ্ঠী বা রাজনৈতিক মতাদর্শের কারণে নিজ দেশে বা বসবাসরত দেশে সুরক্ষা পাবে না—এমন ব্যক্তিদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ইইউ দেশগুলো আশ্রয় দেওয়ার কথা বিবেচনা করে থাকে। বাংলাদেশের পরিস্থিতি সিরিয়া, আফগানিস্তান বা ইরাকের মতো বিপজ্জনক নয়। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছে শরণার্থী মর্যাদার জন্য বাংলাদেশিরা আবেদন করলে তা গৃহীত হওয়ার সম্ভাবনা বেশ কম।

সুনির্দিষ্ট তথ্য-উপাত্ত না থাকলেও ইউরোপে ৮০ থেকে ৯০ হাজার বাংলাদেশি অবৈধভাবে অবস্থান করছে বলে ধারণা করা হয়। সরকারি পর্যায়ের আলোচনায় তাদের অভিহিত করা হয় ‘অনিয়মিত বাংলাদেশি’ হিসেবে। মনে করা হয়, তাদের মধ্যে একটি অংশ নানা কারণে ইউরোপে অনিয়মিত অভিবাসী হয়ে পড়েছে। তবে ইইউর মনোভাব হলো, যাদের ইইউয়ে বৈধভাবে থাকার যোগ্যতা নেই তাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে প্রবল চাপের মুখে বাংলাদেশ এ বছর ইইউর সঙ্গে একটি স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) সই করেছে। গত ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বর বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে এসওপি-সংক্রান্ত যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রথম সভা হয়েছে। গত নভেম্বর মাসে জার্মানি কর্তৃপক্ষ ওই দেশে অবস্থানরত অনিয়মিত বাংলাদেশিদের একটি তালিকা বাংলাদেশকে দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ইউরোপীয় দেশগুলোর কাছ থেকে পাওয়া তালিকার ভিত্তিতে পরিচয় যাচাই করে বাংলাদেশ পর্যায়ক্রমে তাদের ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেবে।

কালের কণ্ঠ….

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.