কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ বন্ধ কেন ?

(Last Updated On: জানুয়ারি ১১, ২০১৮)

আ,ফ,ম আহসান উদ্দিন টুটুলঃ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে কারণে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।রাজনীতিতে গ্রুপিং এক অনিবার্য বাস্তবতা । আমরাও গ্রুপিং করেছি । তাই বলে বৃহত্তর দলিয় স্বার্থের নিজেদের গ্রুপের স্বার্থকে প্রাধান্য নেইনি। আমি যখন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্বে ছিলাম এই রকম সংঘর্ষের আশঙ্কা ছিল বলেই অধ্যক্ষ মুসল্লে উদ্দিন স্যারের সাথে কথা বলেই কমিটি দেওয়া থেকে বিরত ছিলাম তখন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের অনুমোদিত কমিটি ছিল #ভিবা-#সারজিল তারপর আজ -অব্দি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের আনুমোদিত কোন কমিটি হয় নাই ।

কিন্তু এখন অনেকেই নিজেকে সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বলে পরিচয় দেয় । আমি মনে করি যারা ছাত্রপ্রতিনিধি না তাদের কে দিয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি প্ররিচালিত করায় আজকের এই প্ররিস্থির সৃষ্টি হয়েছে। তারা কিসের রাজনীতি করে ?কোন আদর্শের রাজনীতি করে? তাদের কর্মকান্ডে কি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আছে ?মেডিকেল কলেজ বন্ধ থাকলে ক্ষতিঘস্ত হবে নিরিহ ছাত্র-ছাত্রীরা।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ সহ একাডেমিক কাউন্সিলের দৃষ্টি আকর্ষ করছি । পর্বের ঘটনার প্ররিপেক্ষিতে ৮ জন ছাত্রকে বহিষ্কার করা হয়েছিল । আবার কোন এক আজ্ঞাত কারনে তাদের বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার করা হয় ? আমি মনে করি এই বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার করার মধ্য দিয়ে ওই সকল ছত্ররা আর ও বেপরোয়া হয়ে উঠে।ফলশ্রুতিতে সর্বশেষ ৪ ঠা জানুয়ারি ২০১৭ তে ভয়াবহ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়।মেরুদন্ড সোজা করে দায়িত্ব পালন করুন না পারলে পদত্যাগ করুন আজকের এই পরিস্থির জন্য আপনারা অনেক আংশেই দ্বয়ী।

 

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে রাজনীতির গুনগত পরিবর্তনের যে দ্বারা সূচিত হয়েছে তার সাথে তাল-মিলিয়ে চলতে হবে।কারো ব্যক্তিগত অ্যানায় -অপরাধের দাঁয় দল নিবে না।

জয় বাংলা ,জয় বঙ্গবন্ধু

আ,ফ,ম আহসান উদ্দিন টুটুল

সাবেক সভাপতি ,কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগ।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.