ভেনিসে উষা ও আযানের জন্য স্মরণ সভা

(Last Updated On: জানুয়ারি ১৪, ২০১৮)

 

ইতলির ভেনিসের লেওপারদি স্কুলে উষা এবং আযানের স্মরণে এক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। তারা নিহত উষা এবং আযানের স্মরনে একগুচ্ছ ফুল এবং চিরকুট তুলে দেন ভেনিস বাংলা স্কুলের সভাপতি সৈয়দ কামরুল সরোয়ারে হাতে।

সম্প্রতি সৌদি আরবে এক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত কামরুল হোসাইন পরিবারের দুই শিশু সন্তান উষা হোসাইন এবং আযান হোসাইন ভেনিস মেসত্রের লেওপারদি স্কুলে পড়তো। তাদের স্মরণে স্কুলটির ‘পালেসত্রা রুমে’ গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় প্রায় ৩০০ জন শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষক শিক্ষীকাগণ যোগ দেন।

এক মিনিটের নিরবতা দিয়ে শুরু হওয়া স্মরণ সভায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক দাভিদে ফ্রিজোলি বলেন, উষা, আযান আমাদের স্কুলে পড়তো। কদিন আগেও তারা এই স্কুলের আঙ্গিনা মুখোরিত করে রাখতো। আজ তারা নেই। অত্যান্ত দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে, বাবা মাসহ গোটা পরিবারটা দুনিয়া থেকে চিরতরে চলে গেছে। মর্মান্তিক একটা সড়ক দূর্ঘটনা তাদেরকে আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে। এ ঘটনার জন্য আমরা বুকের গভীর থেকে দুঃখ প্রকাশ করছি।

উষার ক্লাস টিচার ফেদেরিকা বলেন, গত তিন বছর যাবৎ আমি উষাকে পড়িয়েছি। সে খুব মেধাবী ছিল। এখনো ক্লাস রুমে তার চেয়ার টেবিল খালি পড়ে আছে। ওদিকে চোখ পড়লেই মনে হয় একটু পরেই উষা ফিরে আসবে। জানি কোনো দিন তা হবার নয়, কিন্তু কোনো ভাবেই মন মানতে চায় না। তিনি বলেন, ক্লাসের অন্যান্য বাচ্চাদের বোঝাতে কষ্ট হচ্ছে উষা আর তার ভাই আযান আর কোনো দিন ফিরে আসবে না।

 

এ সময় গোটা ‘পালেসত্রা রুমে’ এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ফেদেরিকাসহ প্রায় সবাইকে চোখ মুছতে দেখা যায়।

 

বিশিষ্ট কম্যুনিটি ব্যক্তিত্ব ও ভেনিস বাংলা স্কুলের প্রতিষ্ঠতা সভাপতি সৈয়দ কামরুল সরোয়ার বলেন, উষা, আযানসহ কামরুল হোসাইন নিলয় পরিবারের অকাল মৃত্যুতে ভেনিসের বাংলাদেশি কম্যুনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। আমরা তাদের আত্মীয় স্বজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।

 

উল্লেখ্য, প্রবাসী ব্যবসায়ী কামরুল হোসাইন নিলয় ইতালির ভেনিসে স্বপরিবারে বসবাস করতেন। ক্যাথলিকদের বড়দিনের ছুটিতে তারা স্বপরিবারে সৌদি আরব গিয়েছিলেন ওমরাহ হজ করতে। মক্কা থেকে মদিনায় যাওয়ার পথে দুই শিশু সন্তান উষা এবং আযানসহ তারা এক পরিবারের চার জন এবং গাড়ির চালক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হন।

স্বরণ সভায় উষা, আযানের স্মরে তার সহপাঠিরা কবিতা আবৃত্তি করে। তারা কাগজের ফুল বানিয়ে এবং উষা, আযানের জন্য ছোট ছোট চিরকুট লিখে সৈয়দ কামরুল সরোয়ারের হাতে তুলে দেয়।

স্বরণ সভায় অন্যান্য অভিভাবকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ব্যবসায়ী নিয়ামুল নাহিদ, সাংবাদিক জাকির হোসেন সুমন, ভেনিস বাংলা স্কুলের মোসাম্মদ মদিনা এবং রেহানা আক্তার।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.