দলের সিদ্ধান্ত প্রেসিডেন্টকে জানালেন প্রধানমন্ত্রী

(Last Updated On: ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৮)

আওয়ামী লীগ যে মো. আবদুল হামিদকে প্রেসিডেন্ট পদে রেখে দিচ্ছে, তা তাকে জানিয়ে এলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

দলের সিদ্ধান্ত হওয়ার পর দিন বৃহস্পতিবার বঙ্গভবনে যান শেখ হাসিনা। দেশের ২১তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে আবদুল হামিদকে মনোনয়ন দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানান তিনি।
 
শেখ হাসিনা দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি পদে আবদুল হামিদের মনোনয়ন সংক্রান্ত আওয়ামী লীগের নির্বাচন বোর্ডের সিদ্ধান্তপত্র আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেন বলে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন জানিয়েছেন।
 
তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে মনোনীত হওয়ায় বোর্ডের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতিকে অভিনন্দন জানান।”
 
আবদুল হামিদ এসময় তাকে দ্বিতীয় মেয়াদে মনোনয়ন দেওয়ায় শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।
 
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের,  উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এসময় উপস্থিত ছিলেন।
 
রাত ৮টা ৪ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গভবনে পৌঁছালে রাষ্ট্রপতি তাকে স্বাগত জানান।
 
বুধবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় আবদুল হামিদকে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
 
সংসদে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় আবদুল হামিদের দ্বিতীয় মেয়াদে শপথ নেওয়া এখন আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।
 
বাংলাদেশের আইনে এক ব্যক্তি সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপ্রধানের দায়িত্বে থাকতে পারেন। ফলে এবার নির্বাচিত হলে এটাই হবে আবদুল হামিদের শেষ মেয়াদ।
 
পাঁচ বছর আগে দেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেওয়ার আগে জাতীয় সংসদের স্পিকার ছিলেন ৭৪ বছর বয়সী আবদুল হামিদ।
 
প্রায় ছয় দশকের রাজনৈতিক জীবনে সাতবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চল থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।
 
আগামী ২৩ এপ্রিল তার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হবে। ১৮ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন রেখে ইতোমধ্যে তফসিল ঘোষণা করেছে ইসি।
 
আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন সংসদ সদস্যদের ভোটে। আর প্রধান নির্বাচন কমিশনার তাতে নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
 
সংসদীয় গণতন্ত্র চালুর পর ১৯৯১ সালে একাধিক প্রার্থী হওয়ায় একবারই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দিতে হয়েছে সংসদ সদস্যদের। পরে প্রতিবারই ক্ষমতাসীন দল মনোনীত প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে আসছেন।
 
এই বছরেই সরকারের মেয়াদ শেষে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা থাকায় নতুন রাষ্ট্রপতি কে হবেন তা নিয়ে আগ্রহ ছিল রাজনৈতিক মহলে। সে ক্ষেত্রে প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা হামিদের ওপরই আস্থা রেখেছেন শেখ হাসিনা।
 
তার পক্ষে আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল শুক্রবার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবে বলে নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন।

গণভবন সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে দ্বিতীয় বারের মতো রাষ্ট্রপতি হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি সরাসরি তাকে জানাতেই বঙ্গভবনে গেছেন প্রধানমন্ত্রী।
এর আগে, বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় রাষ্ট্রপতি হিসেবে আওয়ামী লীগ সর্বসম্মতিক্রমে মনোনয়ন দেয়।
গত ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। তফসিল অনুযায়ী ১৮ ফেব্রুয়ারি বিকেল ২টা থেকে ৫টা পর্যন্ত জাতীয় সংসদ ভবনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিল ৫ ফেব্রুয়ারি। এদিন সকাল দশটা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র দাখিল করা যাবে। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ৭ ফেব্রুয়ারি সকাল দশটা থেকে শেষ না হওয়া পর্যন্ত। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল দায়িত্ব গ্রহণ করা বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের পাঁচ বছরের মেয়াদ এ বছরের ২৩ এপ্রিল শেষ হবে। আর সংবিধান অনুযায়ী মেয়াদ অবসানে পূর্ববর্তী ৯০ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.