উপ-নির্বাচনঃ নাসিরনগরে আ.লীগ, গাইবান্ধায় জাপার জয়

(Last Updated On: মার্চ ১৪, ২০১৮)

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনের উপ-নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম। ৭৪টি কেন্দ্রের মধ্যে সবকটি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে।

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ব্যারিষ্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নৌকা প্রতিকে ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম পেয়েছেন ৮২ হাজার ২৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ও জাতীয় পার্টি (জাপা) মনোনীত প্রার্থী রেজওয়ান আহমেদ পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৫৮৪ ভোট।

যদিও কেন্দ্র দখল, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া ও পুলিশের বিরুদ্ধে নৌকা প্রতিকে সিল মারার অভিযোগে ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগে নাসিরনগর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।

নির্বাচনে আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী ঐক্যজোট মনোনীত প্রার্থী আশরাফুল হক মিনার প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন দুই হাজার ২৮৭ ভোট।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও উপ-নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শফিকুর রহমান সাংবাদিকদের এ ফালাফলের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনের সংসদ সদস্য ছায়েদুল হক মারা যান। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়ে যাওয়ায় উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা দুই লাখ ১৪ হাজার নয়জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ১০ হাজার ৪১০ জন ও নারী ভোটার এক লাখ ৩৫ হাজার ৯৯ জন।

গাইবান্ধা

জাতীয় সংসদের গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ব্যারিষ্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

জেলা নির্বাচন কমিশন অফিস সূত্রে জানা যায়, তিনি ৭৮ হাজার ৩০৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামী লীগ সমর্থিত আফরুজা বারী (নৌকা) ৬৮ হাজার ৯১৩ ভোট পেয়েছেন।

এ উপনির্বাচনে চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন- আওয়ামী লীগ সমর্থিত আফরুজা বারী (নৌকা), জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী (লাঙ্গল), ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির (এনপিপি) জিয়া জামান খান (আম) ও গণফ্রন্টের শরিফুল ইসলাম (মাছ)।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভোটগ্রহণের জন্য দুই হাজার ৫০ জন কর্মকর্তা নিয়ে নিয়োগ করা হয়েছে। এ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় মোট ১০৯টি ভোটকেন্দ্রে ৬৪৭টি বুথ স্থাপন করা হয়েছে। ভোটগ্রহণের জন্য ১০৯ জন প্রিসাইডিং অফিসার, ৬৪৭ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং এক হাজার ২৯৪ জন পোলিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে।

এ আসনে মোট ভোটারের সংখ্যা তিন লাখ ৩৮ হাজার ৫৫৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৬৪ হাজার ৯৩৪ জন এবং মহিলা ভোটার এক লাখ ৭৩ হাজার ৬২২ জন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা আহমেদ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে এ আসনটি শূন্য হয়। গত ৪ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কমিশন উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন।

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.