২ হাজার উনিশ, বিজেপি ফিনিশ

(Last Updated On: আগস্ট ১৯, ২০১৮)

নয়াদিল্লিতে তার সফর ছিল একদিনের। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী গতকাল বৈঠক করেছেন বেশ কয়েকটি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ও তার মা সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গেও বৈঠক করেন। উদ্দেশ্য একটাই, আগামী লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদির সরকারকে পরাজিত করতে ঐক্যজোট গঠন। সাংবাদিকদের কাছে পুরো দিনের সারমর্ম বলতে গিয়ে বাংলা-ইংরেজি মিশেল করে মমতা বলেন, ‘দুই হাজার উনিশ, বিজেপি ফিনিশ।’ এনডিটিভি লিখেছে, যদিও রাজ্যের রাজনীতিতেই সক্রিয়, এখন মমতাকে জাতীয় রাজনীতির মাঠেও দোদর্পে দৌড়াতে দেখা যাবে।

লোকসভা নির্বাচনে মোদিবিরোধী মহাজোটের নেতৃত্ব দেবেন কে, কে বা হবেন প্রধানমন্ত্রীÑ এসব নিয়ে দলগুলো এখনো স্পষ্ট কোনো অবস্থানে পৌঁছাতে পারেনি। গতকাল মমতাকে এ প্রশ্ন করা হয়েছিল, তিনি প্রধানমন্ত্রী পদে দাঁড়াতে প্রস্তুত আছেন কি না। সতর্কভাবে তিনি উত্তর করেন, ‘আমরা সবাই মিলে আগে বিজেপিকে তাড়াই। ঘটনা ঘটুক আগে। এর পর সবাই বসে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে, কে হবেন প্রধানমন্ত্রী।’ বিরোধী দলগুলোকে একজোট করতে তিনিই কি প্রধান ভূমিকা রাখছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে এনডিটিভিকে মমতা বলেছেন, ‘আমি সবার সঙ্গেই ভালো সম্পর্ক রাখতে চেষ্টা করি। এটা পরম্পরা, সৌজন্যতা। আমি সব দলের সঙ্গে মিলতে পেরে খুশি।’ এর আগে ২১ জুলাই কলকাতায় এক সভায় মমতা বলেছিলেন, ভারতকে পথ দেখাবে বাংলা। লোকসভায় পশ্চিমবঙ্গের যে ৪২ আসন রয়েছে, তার সবকটিতেই জয় পাবে তৃণমূল কংগ্রেস। তিনি আরও বলেন, বিজেপি লোকসভা নির্বাচনে সারাদেশে একশটিও আসন পাবে না। মোদিবিরোধী মহাজোট নিয়ে কংগ্রেস প্রথমে জানিয়েছিল, এ দলটিই নেতৃত্ব দেবে। দলের সভাপতি রাহুল গান্ধী প্রধানমন্ত্রী পদে দাঁড়াবেন। কিন্তু পরে ২৫ জুলাই কংগ্রেস জানায়, বিজেপিকে তাড়াতে প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থিতাও ছাড়তে রাজি আছে দলটি।

গত শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মেদিনীপুরের এক জনসভায় রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘মমতার বিকল্প নেই। আমরা বাঙালি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাকে দেখতে চাই। তাকে প্রধানমন্ত্রী চাই।’ এই সভায় তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখেই দেশে মোদিবিরোধী জোট হচ্ছে। মমতাই হবেন দেশের পরবর্তী নেত্রী-প্রধানমন্ত্রী।’ সম্প্রতি কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ মমতাকে প্রধানমন্ত্রী পদে দেখতে চান বলে তার সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। এদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার দল অবশ্য নিশ্চিত, নির্বাচনে আবার বিজেপিই ক্ষমতায় আসবে। ভারতের লোকসভা ৫৪৫ আসনবিশিষ্ট। এর মধ্যে সরকার গঠনে দরকার হয় অন্তত ২৭৩ আসনে জয়। বর্তমান সরকারে বিজেপির জোটে রয়েছে ৩৭৫ সংসদ সদস্য (এমপি)। এককভাবেই রয়েছে ২৭১ জন। ভারতে ২৯টি রাজ্য রয়েছে। এদের মধ্যে ২২টিতেই ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি বা এর জোট।

http://dainikamadershomoy.com

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.