পাবনা বিএনপির সভাপতিকে সামরিক মর্যাদায় শ্রদ্ধা

(Last Updated On: সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮)

পাবনা জেলা বিএনপির সভাপতি ও বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মেজর (অব.) খন্দকার সুলতান মাহমুদকে শুক্রবার বিকেলে পাবনার আরিফপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

এর আগে বাদ জুমা পাবনা শহরের পুরাতন টেকনিক্যাল কলেজ মাঠে সুলতান মাহমুদের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে সেনাসদস্যরা তাঁকে সামরিক মর্যাদায় শ্রদ্ধা জানান। এ সময় বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়। জানাজায় ইমামতি করেন স্থানীয় ওমর মসজিদের খতিব মাওলানা মহাম্মদ আলী।

জানাজার আগে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব, রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহসাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত, জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুস সামাদ খান মন্টু, সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার হাবিবুর রহমান তোতা, পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ মোশারোফ হোসেন, পাবনা সদর আসনের সাংসদ গোলাম ফারুক প্রিন্সের পক্ষে তাঁর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা সরকারি বুলবুল কলেজের সাবেক ভিপি শেখ রাসেল আলী মাসুদ, জেলা জামায়াতে ইসলামীর আমির অধ্যাপক আবু তালেব মণ্ডল, জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুর মোহাম্মদ মাসুম বগা প্রমুখ বক্তব্য দেন। সর্বস্তরের মানুষ জানাজায় অংশ নেন।

এর আগে সকালে সুজানগর উপজেলায় সুলতান মাহমুদের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে বিএনপির চেয়ারপারসনের পক্ষে উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, কেন্দ্রীয় বিএনপির পক্ষে রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু ও সহসংগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত, বিএনপির চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের পক্ষে জেলা বিএনপির নেতারা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খন্দকার সুলতান মাহমুদ ইন্তেকাল করেন। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

ntvbd.com

Print Friendly

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.