ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের কমিটি ভেঙে দিতে শেখ হাসিনার নির্দেশ

(Last Updated On: অক্টোবর ২৭, ২০১৮)

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের কমিটি ভেঙে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে এ নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রাজধানীর কাকরাইলে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের ভবন নির্মাণকাজে যুবলীগ দক্ষিণের এই নেতার নামে চাঁদা দাবি ও কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছেন শেখ হাসিনা। এরই ভিত্তিতে ক্ষুব্ধ হয়ে কমিটি ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এ সময় যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে রাষ্ট্রীয় সফরে যাওয়ার প্রাক্কালে গণভবনে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে গেলে সম্রাটের নামে ওঠা এ অভিযোগ নিয়ে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় কমিটি ভেঙে দিতে বলেন তিনি। সেখানে উপস্থিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও সহযোগী সংগঠনের একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর দুই নেতা এবং সহযোগী সংগঠনের এক নেতা জানান, এ সময় সম্রাটের পক্ষ নিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মির্জা আজম- সম্রাটের নাম ভাঙিয়ে এ কাজ অন্য কেউ করেছে দাবি করলে জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তুমি থামো।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান। এখানে বেওয়ারিশ লাশ দাফন হয়। এখানে আমি ও শেখ রেহানাও সাহায্য করি। এ প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা দাবি করা ও চাঁদা না দেওয়ায় ভবন নির্মাণের কাজ বন্ধ করে দেওয়া, এটা আমি সহ্য করবো না।’ তিনি বলেন, ‘এখান থেকেও চাঁদা পেতে হবে।’ এ চাঁদাবাজ গ্রুপকে র‌্যাব দিয়ে ধরিয়ে দেবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি দিন-রাত পরিশ্রম করে সুনাম অর্জন করি, আর তারা সুনাম ক্ষুণ্ন করবে- এটা হতে পারে না। এ সময় সেখানে উপস্থিত অন্য নেতারা আর কোনও কথা বলেননি।

আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, দেশের বাইরে যাওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনি প্রচারণার অংশ হিসেবে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের সারাদেশে সফরে পাঠানোর কথা জানিয়ে গেছেন। সরকারের উন্নয়ন ও নৌকার পক্ষে সারাদেশে গণজোয়ার সৃষ্টি করার জন্যে তাদের পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এ লক্ষ্যে তাদের প্রস্তুতি নিতেও নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে রাষ্ট্রীয় সফরে যাওয়ার প্রাক্কালে গণভবনে ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা সাক্ষাৎ করতে গেলে নির্বাচনি প্রচারে নামতে হবে জানিয়ে প্রস্তুতি নিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। সকালে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে যান আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ও সহযোগী সংগঠনের বর্তমান ও সাবেক নেতারা।

এ সময় তিনি তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘সবাইকে যার যার মতো করে প্রচারণায় নামতে হবে। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ সব সহযোগী সংগঠনকে সফরে নামতে হবে। তোমাদের সকলের কাজ হবে সরকারের উন্নয়ন প্রচার করা, নৌকার পক্ষে জনগণের কাছে ভোট চাওয়া। তিনি বলেন, ‘মানুষের কাছে যেতে পারলে, সরকার জনগণের জন্যে যে কাজ করছে এবং আগামীতে ক্ষমতায় এলে আরও যে পরিকল্পনা রয়েছে তা মানুষকে অবহিত করতে পারলে তারা অবশ্যই নৌকায় ভোট দেবে, আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসাবে।’
সেখানে উপস্থিত আওয়ামী লীগ নেতারা বলেছেন, রাষ্ট্রীয় সফর শেষে দেশে ফিরে এলে কয়েকটি দলে ভাগ করে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের সারাদেশে সফরে পাঠাবেন বলে জানিয়েছেন শেখ হাসিনা।

http://www.banglatribune.com

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.