এমপি মনিরকাণ্ডে সর্বত্র ধিক্কার!

(Last Updated On: অক্টোবর ২৭, ২০১৮)

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম মনিরের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

বৃহস্পতিবার যশোরের চৌগাছা উপজেলার এবিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ফুল হাতে ছাত্রীদের ভিডিও এটি।

এতে দেখা যায়, এমপি মনির ও আওয়ামী লীগের নেতারা একটি কক্ষে বসে আছেন। সেখানে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও আছেন। এরই মধ্যে একদল ছাত্রী ফুলের মালা হাতে অতিথিদের সামনে দাঁড়াল। তারপর ‘ধন, ধান্য পুষ্পে ভরা, আমাদের এই বসুন্ধরা…’ গান বাজছে, আর তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে ফুল হাতে মাথা নত করে ছাত্রীরা অতিথিদের সামনে উঠছে আর বসছে। পাশ থেকে এক শিক্ষককে ছাত্রীদের এমন কিছু করার বিষয় শিখিয়েও দিতে দেখা যায়। তবে ছাত্রীদের সবার মুখ মলিন দেখা যায়। ভিডিওতেই স্পষ্ট, জোর করে তাদের দিয়ে এই কাজ করানো হচ্ছে।

সম্মান জানানো দোষের কিছু না। কিন্তু, অতিথির সামনে দাঁড় করিয়ে, কোমলমতী ছাত্রীদের এভাবে ওঠবস করানোকে ভালভাবে নেননি এলাকাবাসী।

তাদের ভাষ্য, আয়োজকরা সুবিধা নিয়েছেন, এজন্য এমপির প্রতি এমনটি করতেই পারেন। কিন্তু, সচেতন মানুষ হিসেবে এমপি মনিরুল ইসলাম কেন বাচ্চাদের এই কাজ করতে দিলেন? শুরুতেই তো ছাত্রীদের তার থামিয়ে দেয়া উচিত ছিল।

ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে ফেসবুক ব্যবহারকারীরাও আয়োজক, এমপি এবং সেখানে উপস্থিত শিক্ষকদের ধিক্কার জানাচ্ছেন।

নাজমুল হোসেন সোহেল রাজ নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী ভিডিওটি শেয়ার করে নিখেছেন, ‘আমার রাগটা ওই শিক্ষকদের ওপর বেশি, তারপর তথাকথিত এমপির ওপর। একজন শিক্ষিত মানুষ হয়েও বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এ রকম মালা নেয়া দৃষ্টিকটূ দেখায়।’

মেহেদী হাসান নামের আরেকজন লিখেছেন, ‘শুধু ব্যক্তিগতভাবে নয়, সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয়ভাবেও এ ধরনের অপকর্ম বন্ধ হওয়া উচিত। আর একই সঙ্গে এমন কাজের নীতি-নির্ধারকদেরও উপযুক্ত শাস্তি হওয়া দরকার।’

আসাদুজ্জামান মুকুল নিজের ফেসবুকে লিখেছেন, ‘কী জঘন্য! শিক্ষকরা তো চামচামিতে গেছেই, এমপির রুচিও কতো জঘন্য! এই সার্কাসের মাধ্যমে আমাদের দেশপ্রেমকেই অপমান করা হয়েছে!’

মিজানুর রহমান দাবি জানিয়ে লেখেন, ‘কোথায় এই স্কুল? আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিষয়টি খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানাই। এইভাবে ফুল দিয়ে বরণ করতে তো কোথাও দেখিনি! বারবার হাঁটু গেড়ে ওঠবস করে ফুল দেয়া, এটা কিসের নিয়ম? শিক্ষক ও স্থানীয়রা আবার এটি উপভোগও করছেন! ধিক্কার সবার প্রতি!’

এম এনামুল হক লেখেন, ‘শিক্ষায় জাতির মেরুদণ্ড। যদি শিক্ষক সব বলদ হন, তবে আমরা খুব শিগগিরই মেরুদণ্ডহীন জাতি পেতে যাচ্ছি!’

মনির-উজ জামান নিজের ফেসবুকে লেখেন, ‘এটা যদি আধুনিকতা বা উচচ শিক্ষার ফল হয়ে থাকে, তাহলে ধিক্কার জানাই এই শিক্ষাকে। সবার মনে রাখা উচিত, সম্মান গায়ের জোরে হয় না, তা কামাই করে অর্জন করতে হয়। আমি ধিক্কার জানাই যারা এর আয়োজক ছিল, তাদের প্রতি।’

বিইউ হায়দার লিখেছেন, ‘অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্যে-বিধেয়, প্রয়োজনীয়তা, চিন্তাশক্তি, রুচিবোধ— সবই আমার মাথার উপর দিয়ে চলে গিয়েছে। আমি বাকরুদ্ধ। ঘৃণা আর ধিক্কার জানানো ছাড়া এই মুহূর্তে কিছু বলতেও মন চাইছে না।’

মূলত নাজমুল হোসেন নামে এক ব্যক্তির ফেসবুক পেজে ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছে। কয়েক ঘণ্টায় ভিডিওটি দেড় লাখের বেশি ভিউ হয়েছে।

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মন্তব্যের জবাবে নাজমুল হোসেন জানান, এবিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানের ভিডিও এটি।

প্রথমে এমপি সাহেব নিজেই তার ফেসবুকে আপলোড করেন। পরে তিনি ডিলিট করে দিয়েছেন বলেও দাবি নাজমুল হোসেনের।

ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চৌগাছার বকসিপুর গ্রামের বাসিন্দা ও আইডিইবি’র যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম।

তিনি মুঠোফোনে পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘ধন ধান্য পুষ্পে ভরা, আমাদের এই বসুন্ধরা… গানের সঙ্গে ফুলের মালা হাতে মেয়েরা এমপিসহ অতিথিদের বরণ করে নিয়েছে। অতিথির প্রতি শ্রদ্ধা জানতেই ব্যতিক্রম এই বরণ অনুষ্ঠান হয়েছে।’

ছাত্রীদের ওঠবস করানোর বিষয়ে নুরুল ইসলাম বলেন, ‘মূলত গানটি কন্টিনিউ করার জন্য মেয়েরা ফুল হাতে, এভাবে ওঠবস করেছে। এটিকে ভিন্নভাবে ব্যাখা করা ঠিক হবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘ওই স্কুলের জমি দান করেছিল আমার মামা। দীর্ঘদিন ভবন ছিল না। নতুন ভবন পেয়ে এলাকার সবাই খুশি। তাই এমপিসহ অতিথিদের একটু আলাদাভাবে বরণ করে নেয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে এমপি মনিরুল ইসলাম মনিরের মুঠোফোনে  একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এমনকি ক্ষুদেবার্তা পাঠিয়েও তার কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

তবে সন্ধ্যায় যশোরের স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে এমপি মনিরুল ইসলাম মনিরের ইমেইল থেকে পাঠানো এক সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার যশোরের চৌগাছা উপজেলা হাকিমপুর ইউনিয়নে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন এমপি মনিরুল ইসলাম মনির।

উদ্বোধন করা কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে, এবিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৬৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ৪তলা ভিত বিশিষ্ট একতলা ভবন, ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে দেবীপুর-বকশীবাজার ১১শ’ মিটার পাকা সড়ক নির্মাণ, ইউনিয়নের পাতিবিলাসহ বিভিন্ন বাজারে স্থাপিত সোলার স্ট্রিট লাইট উদ্বোধন ইত্যাদি।

এসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাহাজান কবীর, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার ও আইডিইবি’র সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আবুল হোসেন, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী বিদ্যুৎ বিভাগ ও আইডিইবি’র সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাস্টার সিরাজুল ইসলাম, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সহিদুল ইসলাম মিয়া, সাবেক শ্রমবিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রাজ, যুব মহিলা লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাজনিন সুলতানা, আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুল ইসলাম, সেলিম হোসেন, অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম, হাকিমপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ইকবাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম প্রধান শিক্ষক শাহাজান কবীর, ছাত্রলীগ নেতা ফিরোজ হোসেন, রয়েল খান, রুমান খান, এসএম রকি, আকাশ খান প্রমুখ।

পরিবর্তন ডটকম.

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.