অসামাজিক কার্যকলাপে বাধা দেয়ায় শাশুড়িকে খুন

(Last Updated On: June 26, 2016)

ছেলে প্রবাসী। থাকে সৌদি আরবে। পুত্রের দীর্ঘ অনুপস্থিতিতে পুত্রবধূ জড়িয়ে পড়ে পরকীয়ায়। এলাকার এক যুবকের সঙ্গে পুত্রবধূর অসামাজিক কার্যকলাপ দেখেও ফেলেন শাশুড়ি। এ নিয়ে কয়েক দফায় গ্রাম্য শালিসও হয়। কিন্তু কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছিল না দুজনকে।

এর মধ্যে ঘটনার দিন রোববার দুপুরে পুত্রবধূ খালেদা আক্তার ডলি (৩৫) আবারো যুবকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টি দেখে ফেলায় শাশুড়ি শামসুন্নাহার (৭০) ডলিকে বাধা দেয়। । বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে পুত্রবধূ আর শাশুড়ির মধ্যে ঝগড়া বেঁধে যায়।

এক পর্যায়ে পু্ত্রবধূ ডলি পুঁতা (শিল) দিয়ে মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই শাশুড়ি শামসুন্নাহারের মৃত্যু হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে জেলার মতলব উত্তর উপজেলার গজরা ইউনিয়নের পূর্ব রায়েরদিয়া গ্রামে। নিহত শামসুন্নাহার রায়েরদিয়া গ্রামের বাসিন্দা। খালেদা আক্তার ডলি বৃদ্ধার ছেলে সৌদীআরব প্রবাসী ছলেমান প্রধানের স্ত্রী। পুলিশ ঘাতক পুত্রবধূ ডলিকে আটক করেছে।

স্থানীয়রা জানায়, সৌদী প্রবাসী ছলেমান প্রধানের স্ত্রী ডলির সঙ্গে এলাকার এক যুবকের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক সময় অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হয় তারা। শাশুড়ি শামসুন্নাহার এক পর্যায়ে তা দেখে ফেলেন। এ নিয়ে ইতোপূর্বে বেশ ক’বার গ্রাম্য শালিস বৈঠকও হয়েছে।

রোববার দুপুরে যুবকের সঙ্গে পুত্রবধূর শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টি দেখে ফেলার পর শাশুড়ি তাদের বাধা দেন। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শাশুড়িকে পুঁতা দিয়ে মাথায় আঘাত করে পুত্রবধূ। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় শাশুড়ি।

খবর পেয়ে মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন মজুমদার ঘটনাস্থলে যান এবং ঘাতক পুত্রবধূকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

পুলিশ নিহত শামসুন্নাহারের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্যে মর্গে পাঠিয়েছে। নিহতের মেয়ে রেহানা বেগম বাদী হয়ে মতলব উত্তর থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

বাংলামেইল২৪ডটকম/

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.