নুসরাত রাফি হত্যা: শাস্তি পাচ্ছেন এসপিও

(Last Updated On: মে ১২, ২০১৯)

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ফেনীর সোনাগাজী থানার সদ্য সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের পর অভিযুক্ত দুই উপ পরিদর্শকের (এসআই) বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে পুলিশ সদর দফতর।

ইতোমধ্যেই শাস্তির অংশ হিসেবে সাময়িক বরখাস্ত করে অভিযুক্ত এসআই ইউসুফকে খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে এবং এসআই ইকবাল আহাম্মদকে পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়িতে সংযুক্ত করা হয়েছে। একইসঙ্গে ফেনীর পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

শনিবার (১১ মে) পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহা-পরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা  বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

পুলিশ সদর দফতর জানিয়েছে, নুসরাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে পুলিশ সদর দফতরের গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের সুপারিশ অনুযায়ী অভিযুক্ত সবার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে অভিযুক্ত দুই এসআইকে অন্যত্র সংযুক্ত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এছাড়া অভিযুক্ত ফেনীর এসপির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের অংশ হিসেবে তাকেও একটি ইউনিটে সংযুক্ত করা হবে। তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি বর্তমানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (০৯ মে) নুসরাত হত্যার জেরে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে সোনাগাজী থানা থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়।

এআইজি সোহেল রানা বাংলানিউজকে বলেন, সাময়িক বরখাস্ত করে তাদের দূরবর্তী বিভিন্ন ইউনিটে সংযুক্ত করা হয়েছে। সংযুক্তি কোনো বদলি নয়, এটি শাস্তি প্রক্রিয়ার একটি অংশ। সংযুক্তিকালে তাদের কোনো দায়িত্ব দেওয়া হয় না।

গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাতকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ওই মাদ্রাসাটির অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর ৬ এপ্রিল মাদ্রাসার ছাদে ডেকে নিয়ে অধ্যক্ষের সহযোগীরা নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নুসরাত মারা যায়।

এ ঘটনায় পুলিশের গাফিলতি খতিয়ে দেখতে ১৩ এপ্রিল পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি এসএম রুহুল আমিনের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সোনাগাজী ঘুরে এসে ৩০ এপ্রিল রাতে পুলিশ সদর দফতরে প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি।

প্রতিবেদনে ফেনীর এসপি জাহাঙ্গীর আলম সরকার, সোনাগাজীর সদ্য সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন, এসআই ইকবাল ও ইউসুফের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনে শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে।

এছাড়া অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল কবিরের বিরুদ্ধেও দায়িত্বে অবহেলা ও গাফিলতির সুস্পষ্ট প্রমাণ মিলেছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়.

বাংলানিউজ.

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.