যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তিদাবীকারীই স্পেন আ. লীগ আহবায়ক!( ভিডিও)

(Last Updated On: জুলাই ২৮, ২০১৯)

তুষার ভদ্রঃ  যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তিদাবীকারী সৈয়দ রবিউল ইসলাম ওরফে রবিনকে স্পেন আওয়ামী লীগ আহবায়ক করা হয়েছে । ইউরোপ আওয়ামী লীগ সভাপতি নজ্রুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান চরম বিতর্কিত এই ব্যক্তিকে আহবায়ক নির্বাচিত করেন । এই রবিন স্পেন অনেকের কাছে লাশ রবিন হিসেবেইও পরিচিত।

বতর্মানে আওয়ামী লীগ করেন দাবীকারী সৈয়দ রবিউল ইসলাম ওরফে রবিন অনুষ্ঠানের সঞ্চালক। ইউ টিউবে আপলোড করা ভিডিও দেখলে দেখা যায় হলরুমের ব্যানারের আশে পাশে বাংলাদেশের শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজম , সাইদী , নিজামী , মুজাহিদ , সাকা চৌধুরী ও কাদের মোল্লাদের রাজবন্দী উল্লিখিত পোস্টার শোভা পাচ্ছে।

সেভ বাংলাদেশ মূলত সেই সময়ে বিএনপি জামাত সমর্থকদের তৈরী ছদ্মবেশী প্লাটফর্ম যেখান থেকে যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি আন্দোলন করা হয়েছিল। ভিডিও লক্ষ্য করলে দেখা যায় সেভ বাংলাদেশ পর্তুগাল এর নেতা জনাব জুবায়ের বক্ত্তৃতার সময় আওয়ামী লীগ সরকার ও দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিষোধাগার করে। মঞ্চে স্পেন বিএনপির সভাপতি ও জামাত এর নেতৃবৃন্দের সাথে সৈয়দ রবিউল ইসলাম ওরফে রবিনকে দেখা যায়। সৈয়দ রবিউল ইসলাম রবিন ১ /১১ এর সময় তৎকালীন এম মঈন উ আহমেদকে স্পেনের মাদ্রিদে সংবর্ধিত করছিল।

স্পেন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শাকিল খান পান্না ও সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম নয়ন নিজেদের পক্ষকে ভারী করার জন্য রবিনদের মত জামাতের প্রেতাত্মাদের আওয়ামী লিগে অন্তর্ভুক্তি করে। এক সময় নিজেকে স্পেন আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার জন্য জোর চেষ্টা চালায়। কিনতু সেভ বাংলাদেশ এর নামে সৈয়দ রবিউল ইসলাম রবিন এর কার্যক্রম এর কথা অনেকে জানতো না।  ঘোষিত আহবায়ক কমিটির মধ্যে রবিনের সাথে আরও বিতর্কিত লোক আছেন এরা কিনা দেশে প্রথমে ছাত্রদল , পরবর্তীতে ছাত্রলীগ এবং স্পেনে এসে সোনালী সোনালী ব্যাংকের মাদ্রিদ অফিসে চাকুরীর জন্য ৩ বছর জামাত ঘরোণার লোকদের সাথে চলেছেন এজন্য অনেকে তাকে জামাতের লোক হিসেবে চেনে ।

ইউরোপ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এম এ গনি স্বাক্ষরিত  স্পেন আওয়ামী লীগের  সভাপতি আখতার হোসেন আতা ও সাধারণ সম্পাদক রিজভী আলম এর কমিটি ঘোষিত হওয়ার পর বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ দূতাবাস স্পেন আয়োজিত আলোচনা সভা শেষে সৈয়দ রবিউল ইসলাম রবিন গন্ডগোল করে। কিনতু পূর্বে কখনো রবিন দূতাবাস অনুষ্ঠানে যায়নি। এম এ গনি স্বাক্ষরিত ফিনল্যান্ড কমিটির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে , বেলজিয়ামে কেন্দ্রিয় নেতা অনেক মন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে নজরুল – মুজিবের উপস্থিতিতে ।

এছাড়া সৈয়দ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ ইউরোপ আওয়ামী লীগ  বর্তমান সভাপতি সেই সময়ের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুইডেন সফরের সময় লাঞ্চিত করে। এছাড়া জামাতের এজেন্ট এই সব রবিনরা হাঙ্গেরিতে প্রধানমন্ত্রীর সফরের সময় গণসংবর্ধনায় ও প্রবেশ করে এবং নিজদের বড় আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দেয়।

সূত্র দাবী করছে ইউরোপ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এই পদে এই জামাতার ঘরোনার লোককে পদে অধিষ্ঠিত করেছেন ।৭ মাসে যাবত ২ নেতা দিয়েই ইউরোপ আওয়ামী লীগ চালনো হলেও বিভিন্ন দেশে হাইব্রীড নব্য, বিএনপি জামাতা ঘরোনার  টাকা ওয়ালদের কাছে দলীয় পদ বিক্রি করছে এমনটাই  নেতাকর্মীরা দাবী করছেন ।

পদ বিক্রি এখন ইউরোপ আওয়ামী লীগের ২ নেতার আয়ের উৎস বলে সূত্র দাবী করছে। এসবে ত্যাগী নেতাকর্মীদের হারিয়ে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে।

নজরুলের সাথে প্রায়ই দেখা যায় ইতালি বিএনপির সাবেক তথ্য সম্পাদক এক টেলিভিশিনের প্রতিনিধিকে, সেই লোক নাকি উনার উপদেষ্টার মত!

উল্লেখ্য -ইউরোপ আওয়ামী লীগ সভাপতি নজ্রুল ইসলাম ও সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান বঙ্গবন্ধু , প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা , সজিব ওয়াজেদকে নিয়ে চরম ও প্রকাশের অযোগ্য বাজে মন্তব্য কারী মানবপাচারকারি  ব্যক্তিকে মাল্টা আওয়ামী লীগের সভাপতি বানান  ।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.