সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বিদেশ পাড়ি, ডেঙ্গু যখন মহামারী

(Last Updated On: July 31, 2019)

মোস্তফা ফিরোজঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিককে নাকি এখন দেশে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। কেউ বলছেন তিনি মালয়েশিয়ায় গেছেন। আবার কেউ বলছেন থাইল্যান্ডে। অনলাইন পত্রিকা বাংলা ট্রিবিউনের রিপোর্ট পড়ে বুঝলাম তারা তন্নতন্ন করে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অবস্থানের খোঁজ করেছেন। কিন্তু তার হদিস বের করতে পারেনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে খোঁজার কারণ হচ্ছে,ডেঙ্গু ঠেকাতে মন্ত্রণালয় ও এর অধীন সব দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। তার মানে ডেঙ্গু নিয়ে একটি দূর্যোগকালীন পরিস্থিতি চলছে। এই অবস্থায় স্বাস্থ্যকর্মীদের ছুটি বাতিল সবার কাছে প্রশংসনীয় পদক্ষেপ হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

কিন্তু কর্মীদের মাঠে ছেড়ে দিয়ে তাদের পিতা মানে মন্ত্রী মহোদয় কোথায় গেলেন? কেউ বলছেন সপরিবারে ছুটি কাটাতে বিদেশ গেছেন। কিন্তু এটা কেমন কথা? সবাই কেন এর সমালোচনা করছেন সটা আমার মাথায় আসছে না। আমি বলবো এই সমালোচনা যুক্তিসঙ্গত হচ্ছে না। অনেকটা অমানবিকও বটে। ভেবে দেখুন, তিনি মন্ত্রী, তাই বলে কি উনার স্বাদ আহ্লাদ থাকবে না? পরিবারের চাহিদা বা আবদার পূরণ করবেন না? এর থেকেও বড়ো কথা হচ্ছে, জুতা সেলাই থেকে চণ্ডীপাঠ পর্যন্ত, সবইতো এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেই দেখতে হচ্ছে। সুতরাং এখানে মন্ত্রীর কাজ কি? তিনি থাকলেও চলে, না থাকলেও অসুবিধা নেই। আমরা যদি ডেঙ্গু, গুজব, ভেজাল, খাদ্য, ধর্ষণ সহ সাম্প্রতিক সময়ে নানা ঘটনা দূর্ঘটনার কথা মনে রাখি তাহলে দেখা যাবে সরকারে এক নম্বর ব্যক্তির কাছে থেকে নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত কোন সমাধান হচ্ছে না। আর কারো কোন মাথা ব্যাথা নেই। সবই এক জায়গা থেকে কাজ হচ্ছে।

মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিক হয়তো বিষয়টি ভালোভাবে জানেন। এই জন্য তিনি ডেঙ্গু বা বন্যায় মানুষ মারা যাবার মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়েও বিচলিত হননি। তিনি তার পূর্ব নির্ধারণ ব্যক্তিগত বা পারিবারিক সফরসূচি অনুযায়ী বিদেশ গেছেন। এটা অত্যন্ত পরিস্কার বিষয়। এখানে বিস্মিত হবার বা সমালোচনার কি আছে?

ফেইস বুক থেকে,

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.