প্রবাসে সাংবাদিক নির্যাতন!

(Last Updated On: August 18, 2019)

পলাশ রহমান, ইতালিঃ প্রবাসে যারা বাংলাদেশের রাজনীতি করেন তাদের মধ্যে একটা অদ্ভুত প্রবণতা দেখা যায়- তারা সাংবাদিকদের একদম সহ্য করতে পারেন না। সরাসরি ‘সহ্য করতে পারেন না’ বলা হয়তো ঠিক হবে না। বরং বলা যেতে পারে যারা সঠিক সংবাদ পরিবেশন করেন বা তাদের স্বার্থ বিরোধী সংবাদ পরিবেশন করেন, তাদের বিরোধীদের সংবাদ পরিবেশন করেন এমন সংবাদিকরা তাদের দুচোখের বিষ। মজার বেপার হলো এই রাজনীতিকরাই আবার কথায় কথায় সাংবাদিকদের সবক খয়রাত দেন- সব সময় বন্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করতে হবে। নিরপেক্ষ থাকতে হবে, ইত্যাদী।

রোমের বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে একজন আওয়ামীলীগ নেতা ও তার সমর্থকরা একজন সাংবাদিকের সাথে ভয়ানক খারাপ আচারণ করেছেন। দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার ইতালি প্রতিনিধি এবং প্রবাসী সাংবাদিক নেতা জমির হোসেনের বিরুদ্ধে ওই নেতার অভিযোগ অভিন্ন। জমির নাকি তার নাম লেখেন না, ছবি ছাপান না, তার বিরোধীদের বেশি কাভার দেন, ইত্যাদী।

সাংবাদিক জমিরের সাথে অসৌজন্য আচারণের সময় সেখানে আমাদের রাষ্ট্রদূতসহ দূতাবাস কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিক জমির তাদেরই আমন্ত্রণে সংবাদ সংগ্রহ করতে সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু তারা কেউ কোনো কথা বলেননি। বরং খুশিই হয়েছেন বলে মনে হয়। কারন জমিরের লেখা অতীতের কিছু খবর নাকি দূতাবাসকেও অসস্তুষ্ট করেছে। বিশেষ করে প্রবাসীদের পাসপোর্ট সংক্রান্ত জটিলতা নিরসন বা হয়রানি বন্ধ সংক্রান্ত খবরগুলো হয়তো দূতাবাসের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে।

আমরা জানি এমআরপি চালু হওয়ার পরে থেকে প্রবাসীদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ পাসপোর্ট জটিলতায় ঝুলে আছেন। যার সংখ্যা প্রায় ১০ হাজারেরও অধিক। তাদের অতীত পাসপোর্টের ভুলভ্রান্তি সংশোধনের জন্য আবেদন করেই তারা লটকে গেছেন। এসব সাধারণ জটিলতা নিরসনের জন্য প্রবাসীরা দীর্ঘ দিন নানা উপায়ে সরকারের কাছে আবেদন জানিয়ে এসেছেন। সাংবাদিকরা আমাদের রাষ্ট্রদূতকে বার বার এ বিষয়ে প্রশ্ন করেছেন। জনাব রাষ্ট্রদূত বারাবরই বলে এসেছেন, ঢাকায় পাসপোর্টগুলো আটকে রাখা হয়েছে। সমস্যা সমাধানের জন্য তিনি সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন। কিন্তু দীর্ঘ দিন অপেক্ষার পরেও প্রবাসীরা কোনো সুষ্ঠু সমাধান পাননি। অবশেষে সম্প্রতি ইতালির একজন প্রবাসী আওয়ামীলীগ নেতা প্রধানমন্ত্রীর এক মিটিং এ প্রসঙ্গটি তোলেন। এরপরে কিছুটা পানি গড়াতে শুরু করেছে। রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের নিয়ে তড়িঘড়ি বৈঠকও করেছেন।

প্রবাসে যারা সাংবাদিকতা করেন তাদের অধিকাংশই নির্যাতীত হন আওয়ামীলীগের প্রবাসী নেতাকর্মীদের দারা। গোটা দুনিয়ার যেখানে যতো প্রবাসী সাংবাদিক আছেন তাদের প্রায় সকলের অভিযোগ অভিন্ন। এই দলটার নেতাকর্মীরা এত বেশি প্রতিক্রিয়াশীল যে তাদের স্বার্থ বিরোধী একটা শব্দও তারা বরদাস্ত করতে পারেন না।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.