সাকিবকে ১৮ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করবে আইসিসি

(Last Updated On: October 29, 2019)

এই বিস্ফোরক তথ্য প্রকাশ করেছে দৈনিক সমকাল। পত্রিকাটি জানায়, আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিট (আকসু) একটি কল রেকর্ড পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমন এক সময় এই সংবাদ এলো, যখন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে তুমুল টানাপড়েন চলছে সাকিব আল হাসানের।
দুই বছর আগে একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচকে কেন্দ্র করে একজন ক্রিকেট জুয়াড়ি (বুকি) সাকিবকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন। বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার সঙ্গে সঙ্গেই ওই প্রস্তাব প্রত্যাখান করেছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী সাকিব বিষয়টি আকসুকে জানানোর কথা। কিন্তু সাকিব তথ্যটি জানাননি। আন্তর্জাতিকভাবে সংঘবদ্ধ জুয়াড়িচক্রের কল রেকর্ড ট্র্যাক এই গোপন তথ্য উদ্ধার করে আকসু। সাকিবকে যেই জুয়াড়ি কল করেছিলেন, তিনি আকসুর কালো তালিকাভুক্ত বলে জানা গেছে। বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত হয়েই আকসুর প্রতিনিধি সম্প্রতি সাকিবের সঙ্গে কথা বলেছেন বলে সমকাল জানিয়েছে।

একটি বিশ^স্ত সূত্রের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি জানিয়েছে, আইসিসির কাছে নিজের ভুল স্বীকার করে নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। আত্মপক্ষ সমর্থন করে সাকিব দাবি করেছেন, তিনি জুয়াড়ির প্রস্তাবকে মোটেও গুরুত্ব দেননি। তাই বিষয়টি জানানোর প্রয়োজনবোধ করেননি। দৈনিক পত্রিকাটির দাবি, সব রকমের ক্রিকেট থেকেই নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের ইতিহাসের এই সেরা ক্রিকেটার। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের একটি সূত্র দাবি করেছে, তারা এ ব্যাপারে জানে। আজ অথবা কাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে নিশ্চিত করে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানিয়ে দেবে ক্রিকেটের বিশ^ সংস্থা আইসিসি।
তবে বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, সাকিব যেহেতু প্রস্তাব গ্রহণ করেননি, তাই এই বিষয়ে নমনীয় বাংলাদেশ ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি। আগামি ভারত সফরে সাকিবকে পাওয়া যাবে না, এটি নিশ্চিত ধরেই এগুচ্ছেন তারা। রোববার বিষয়টি নিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কার্যালয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন সাকিব। পাপন নিশ্চিত করেছেন, তিনি এবং তার সংস্থা সাকিবের পাশেই থাকবে। তবে সাকিব যেনো এই বিষয়ে ঢালাওভাবে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা না বলেন।
পুরো প্রক্রিয়াটি আইনি কাঠামোর মধ্যেই সামলাতে চায় বিসিবি। সাম্প্রতিক টানাপোড়েনের পরও সাকিবের প্রতি কোনো প্রতিশোধমূলক আচরণ না করে তার পাশেই থাকবেন পাপন, বিসিবি সূত্র তাই জানাচ্ছে।

এক বছর ধরেই বিষয়টি সাকিব জানতেন বলে দৈনিকটি জানিয়েছে। তবে এই বিষয়টি কাউকে জানতে না দিয়ে নিজের মধ্যেই রেখেছেন সাকিব। তার ধারণা ছিলো, সব ঠিক হয়ে যাবে। কারণ তিনি জুয়াড়ির প্রস্তাব গ্রহণ করেননি। মাঝখানে অনেক সময়ও কেটে গেছে। আইসিসিও এই বিষয়ে নিশ্চুপ ছিলো। সাকিব বিষয়টি প্রথমে জানান জাতীয় দলের সিনিয়র এক ক্রিকেটারকে। তিনি জানান তার খুব ঘনিষ্ঠ আরেকজনকে।
সাকিবের আশা, শাস্তির মেয়াদ বেশি হবে না। আইসিসির ধারা মোতাবেক তার শাস্তি হতে পারে সর্বনি¤œ ৬ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৫ বছর। তবে একটি সূত্র জানায়, সাকিবের শাস্তি হবে ১৮ মাস। শাস্তি যাই হোক, আগে থেকেই শাস্তি কমানোর আবেদন করবেন বলে মানসিক ও আইনি প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন এই অলরাউন্ডার।

সূত্র – আমাদের সময়

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.