৪৫ বছর বয়সে ৬০ বার বিয়ে করেছেন বক্কর!

(Last Updated On: November 5, 2019)
৪৫ বছর বয়সে ৬০তম বিয়ে করে ধরা খেলেন জামালপুরের ইসলামপুরের বক্কর। নতুন নতুন বিয়ে করতে নিজেকে কখনও সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, কখনও বিভিন্ন নামীদামী ওষুধ কোম্পানির রিপ্রেজেন্টেটিভ হিসেবে পরিচয় দিতেন আবু বক্কর। ভুয়া নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে একে একে ৬০টি বিয়ে করেন তিনি।
 
তবে শেষরক্ষা হয়নি বক্করের। শেষ স্ত্রীর করা মামলায় পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন বক্কর। তিনি ইসলামপুর উপজেলার গোয়ালেরচর ইউনিয়নের সভারচর গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে।
 
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তিনি এলাকায় চিটার বক্কর নামে পরিচিত। ১৭ বছর বয়সে প্রথম বিয়ে করেন বক্কর। দেশের বিভিন্ন জেলায় নানা ধরনের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসা, কোথাও রিপ্রেজেন্টেটিভ চাকরি, অবিবাহিত, বৌমারা গেছে এ সব কথা বলে বিভিন্ন ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে ৪৫ বছর বয়সে ৬০টি বিয়ে করেছেন এই প্রতারক।
 
বিয়ে করা তার পেশা হিসেবে নিয়েছিল। অসহায় মেয়েদের বিয়ে করে হাতিয়ে নিয়েছে মোটা অংকের টাকা। অবশেষে নেত্রকোনা পূর্বধলা উপজেলার ঔটি গ্রামে ৬০তম স্ত্রী রোজি বেগমের মামলায় ধরা পড়েছে এই প্রতারক।
 
মামলা সূত্রে জানাগেছে, আবু বক্কর ওরফে চিটার বক্কর রোজী বেগমের এক আত্মীয়ের সাথে এলাকায় যাতায়াত করতো। তিনি ইনসেপ্টা ফার্মাসিস্টের জেলা এরিয়া ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত এবং সে অবিবাহিত। এই পরিচয় দিয়ে গত আগস্ট/১৯ মাসে তার নাম শাহিন আলম, পিতা আকরাম হোসেন গ্রাম-কুতুবেরচর,সাধুরপাড়া, বকসীগঞ্জ উপজেলার ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে রোজি বেগমকে বিয়ে করে রোজীর বাড়িতে বসবাস করে শুরু করে বক্কর।
 
এ সময় রোজী পরিবারের কাছে বক্কর যৌতুকের ২লাখ টাকা দাবী করেন। এতে রোজীর পরিবার যৌতুকের টাকা না দিলে প্রতারক বক্কর কৌশলে শ্যালককে ঔষধ কোম্পানির চাকরি দেওয়ার কথা বলে শশুরের কাছ থেকে নগদ ৮০হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয়। পরে স্ত্রী রোজীর পরিবার খোজ খবর নিয়ে জানতে পারেন প্রতারক আবুবক্কর ভুয়া নাম ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ের নামে প্রতারণা করেছে। পরে স্ত্রী রোজী বাদী হয়ে পূর্বধলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
 
এ ব্যাপারে প্রতারক আবু বক্কর জানায় তার বয়স ৪৫ বৎসর। এ পর্যন্ত তিনি ৬০টি বিয়ে করলেও তিনি ৭ সন্তানের জনক। শুধু টাকার লোভে তিনি বিয়ে করেছে। টাকা পেলেই স্ত্রীকে ফেলে অন্য স্থানে বসবাস শুরু করতেন।
 
তিনি আরো জানান, বিভিন্ন নাম ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ে করলেও তিনি নিজ উপজেলা ইসলামপুরের ঠিকানা কখনই ব্যবহার করতেন না। বর্তমানে নিজ বাড়ীতে প্রথম স্ত্রী সাজেদা বেগম সহ দুই স্ত্রীর সাত সন্তান রয়েছে।
 
ইত্তেফাক/
Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.