নজরুল-মুজিবের কর্মকান্ডে ইউ.আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা ক্ষুব্দ

(Last Updated On: November 24, 2019)

 নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  ইউরোপ আওয়ামী লীগ এর সর্বত্র নতুন কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মুজিবর রহমান এর কর্মকান্ডে ইউরোপ আওয়ামী লীগ এর দীর্ঘদিনের ত্যাগী নেতাকর্মীরা ক্ষুব্দ।

গত ফেব্রুয়ারি ২০১৯  প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী জার্মান সফরকালে ইউরোপ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অনিল দাশ গুপ্ত ও সাধারণ সম্পাদক এম, এ,গনিকে উপদেষ্টা করে ইউরোপ আওয়ামী লীগকে আরো বেশি গতিশীল করে নজরুল -মুজিবকে দায়িত্ত প্রদান করে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রদত্ত দায়িত্বকে হাতিয়ার করে নজরুল -মুজিব ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অনুপ্রবেশকারী, শেখ হাসিনাসহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে কটূক্তি কারী এবং রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর মুক্তি দাবিকারী ব্যক্তিদের আওয়ামী লীগের শীর্ষ পদে আসীন করেছেন।

নজরুল -মুজিব শুরুতেই  মালটা আওয়ামী লীগেরর কমিটি করতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। যেখানে আগে কোন কমিটি ছিল না, সেখানে মাত্র ২শতাদিকবাংলাদেশির বসবাস । মালটা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদে মসিউর রহমান কে ঘোষণা করে। এই মশিউর রহমান ২০১৬ সালে প্রকাশ্যে ফেসবুকে বর্তমান  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অশ্লীল ভাষায় লিখে স্ট্যাটাস করে। এই বিষয়ে মালটা আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা কর্মীরা নাম প্রকাশে বলেন , আদম পাচার এর মাফিয়া মশিউর রহমান এর আতিথ্যে সম্মেলনের তিন দিন আগে থেকে মালটার ফাইভ ষ্টার হোটেলে নজরুল- মুজিব অবস্থান করে। এই সময় কোন নেতা কর্মীর সাথে দেখা না করে অর্থের বিনিময়ে সম্মেলনের দিন কারো কথা না শুনে কমিটি ঘোষণা করে।

সম্প্রতি স্পেন আওয়ামী লীগ এর ঘোষিত কমিটিতে সভাপতি এস আই রবিউল ইসলাম রবিন , যিনি সেভ বাংলাদেশের ব্যানারে যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর পক্ষ নিয়ে সরকার প্রধান শেখ হাসিনাকে অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করে। এই বিষয়ে স্পেন আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও দুঃসময়ের নেতা সাবেক সভাপতি আতাউর রহামন আতা বলেন, দেশের মতো প্রবাসেও অনুপ্রবেশ ঘটেছে। বিভিন্ন সময়ে নিজেদের জাহির করার জন্য আওয়ামী লীগের নেতারা তাদের প্রশ্রয় দিয়েছে। তিনি বলেন ইউরোপ আওয়ামী লীগকে চ্যালেঞ্জ করে স্পেন আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও দুঃসময়ের কর্মীরা পাল্টা কমিটি করেছি। গত কমিটির সহসভাপতি বোরহানকে সভাপতি এবং ত্যাগী নেতা সেলিম কে সাধারণ সম্পাদক করে স্পেন আওয়ামী লীগের কার্যক্রম চলবে। সভাপতি বোরহান উদ্দিন বলেন , আমাদের ইউরোপ আওয়ামী লীগের দুই মুরব্বি অনিল দা ও গনি ভাই এর সাথে যোগাযোগ করেছি এবং জানিয়েছি। দুজনেই আমাদের আস্বস্থ করেছেন , প্রধানমন্ত্রীকে জানাবেন।

আওয়ামী লীগের ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই বিষয়ে কাগজ সমূহ জমা দিয়েছি। বিভিন্ন দেশের নেতা কর্মীরাও টেলিফোনে প্রতিবেদককে নজরুল-মুজিব সম্পর্কে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ইউরোপ আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমানে প্রধান উপদেষ্টা অনিল দাশ এই প্রতিবেদককে বলেন , শেখ হাসিনার নিরাপত্তাকে অগ্রাহ্য করে যারা অনুপ্রবেশকারী ও হাইব্রিডদের আশ্রয় দিচ্ছে তাদের বিষয়ে কোন ছাড় নেই। এই বিষয়ে কতৃপক্ষকে জানানো হবে।

সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান উপদেষ্টা এম, এ, গনি বলেন , অনিল বাবু মিলে আমরা অনেক কষ্টে ইউরোপ জুড়ে সংগঠন করেছি। কেউ চাইলে ইচ্ছেমতো সংগঠনকে বরবাদ করতে পারে না। বিভিন্ন দেশের নেতাকর্মীদের সাথে আমাদের নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। তারা আমাদেরকে ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা এই সব অনুপ্রবেশকারীরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এর জন্য হুমকি। ইউরোপ জুড়ে বঙ্গবন্ধুর খুনি ডালিম রা এবং একুশে অগাস্ট গ্রেনেড হামলার মূল নায়ক তারেক জিয়া ঘুরে বেড়াচ্ছ। বিষয়টি কোনভাবেই হালকা করে নেওয়ার সুযোগ নেই। প্রধানমন্ত্রী নিরাপত্তা কাউন্সিল বরাবর বিষয়টি জানানো হবে। নজরুল- মুজিব এর কর্মকান্ডের সাথে আমাদের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। তারা তাদের ইচ্ছে মতো কর্মকান্ড করছে। যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন , ইউরোপের কোন জায়গায় কোন কমিটি করতে আমি ও অনিল বাবুর পরামর্শ নিতে।

অন্যদিকে ইতালি আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন , নজরুল- মুজিব ফটোসেশন ছাড়া কিছু করে না।আস্তে যেতে দাঁড়াতে বসতে ঘুরতে শুধু ছবি আর ছবি। সরকারের বিরুদ্ধে ষডযন্ত্র যখন হয় তখন তারা কখনো ফেসবুকে প্রতিবাদ করে না। এদের থেকে বেশি কিছু আশা করা যায় না। জার্মান আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা জানান , যারা নজরুল-মুজিবকে লাঞ্চিত করে তারাই নেতা হয়। তারা দুজনেই ভয়ে তাদের নেতা বানায়। মারবেন আর ভালো করে কিছু ইউরো বরাদ্দ করলেই নেতা হবেন। উল্লেখ , জার্মান আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নজরুল- মুজিব লাঞ্চিত হয়েছিল।

জার্মান আওয়ামী লীগের সভাপতি বশিরুল আলম চৌধুরী সাবু ও সাধারণ সম্পাদক আব্বাস নজরুল মুজিবকে জার্মানতে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে। তারা বক্তব্যেই প্রকাশ্যে নজরুল একসময় জাসদ করতো এবং নজরুল এর নেতিবাচক বিভিন্ন কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করেন স্পেন আওয়ামী লীগ তৃণমূলের কর্মীরাও অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছে। এছাড়া গ্রীস এবং অস্ট্রিয়া দুই গ্রূপে আওয়ামী লীগের কর্মকান্ড সক্রিয়। সামগ্রিক বিষয়ে নজরুল – মুজিবকে টেলিফোনে যোগাযোগ করলেও পাওয়া যায়নি। সব কিছু মিলে ইউরোপ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্দ। ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে ইউরোপের নেতাকর্মীরা বাংলাদেশ সফরকালে ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.