প্রবাসীরা অর্থনীতিতে বিরাট ভুমিকা রাখছেঃ প্রধানমন্ত্রী

(Last Updated On: February 5, 2020)

জালাল হাওলাদার, ইতালি, ইতালি সফরত প্রধানমন্ত্রী শেখ  শেখ হাসিনা বলেন প্রবাসীরা  আমাদের অর্থনীতিতে বিরাট ভুমিকা রাখছে। প্রধানমন্ত্রী প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আহবান জানিয়েছেন।তিনি বলেন  চাকুরীর পিছনে না করে বিনিয়োগ করে প্রতিষ্ঠিত হন । শেখ হাসিনা মঙ্গলবার ইতালির রোমের একটি হলে ইতালি আওয়ামী লীগ আয়োজিত গণ সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য এ কথা বলেন।

দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল রাখার জন্য প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি যেন উজ্জ্বল হয়, সেভাবে নিয়ম মেনে চলবেন। আপনাদের আচার-আচরণ, ব্যবহার সব কিছুতেই যেন দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়।

ইতালি আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজী ইদ্রিস ফরাজীর সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক হাসান ইকবালের পরিচালয়নায় সংবর্ধনায় বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবদুল মোমেন ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ  শেখ হাসিনা বলেন ঘুষ নেওয়া ও দেওয়া দুইটাই অপরাধ । এই কালচার বিএনপি শুরু করে ।

এর আগে আজ মঙ্গলবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুইজেপ্পে কোন্তের আমন্ত্রণে ইতালিতে চার দিনের দ্বিপক্ষীয় সরকারী সফরে রোম পৌছেন।

এ সফর কালে ৫ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুইজেপ্পে কোন্তের সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। বৈঠকে বাংলাদেশ ও ইতালির মধ্যে তিনটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।প্রসতাবিত এই চুক্তি গুলোর মধ্যে রয়েছে সাংস্কৃতিক বিনিয়োগ, রাজনৈতিক আলোচনা এবং কূটনৈতিক ক্ষেত্রে আলোচনা। দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর একটি যৌথ ইশতেহার জারি করা হবে উল্লেখ করার কথা রয়েছে। যদি সফরের সময় প্রস্তাবিত চুক্তিগুলো স্বাক্ষর করা সম্ভব না হয়, তবে সেগুলো যৌথ বিবৃতিতে প্রতিফলিত হবে এবং পরে চুক্তিগুলো স্বাক্ষর করা হবে। বাংলাদেশ ও ইতালি দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা করারও কথা রয়েছে তবে উভয় দেশের মধ্যে এ বিষয়ে চুক্তির কোনো সম্ভাবনা নেই। ৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সম্ভাব্য বিভিন্ন খাতে আরও বেশি ইতালিয়ান বিনিয়োগের আহ্বান জানবেন। এছাড়াও দুই নেতা দ্বিপক্ষীয় ইস্যুর ব্যাপক পরিমল এবং পাশাপাশি পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে আলোচনা করার কথা রয়েছে। একই দিন কয়েকটি ইতালীয় বড় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার বাসস্থানে সাক্ষাৎ করবেন। এর পর পর তৃতীয় বারের মতো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণের পর এটি হচ্ছে ইতালিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই সফরটিকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করছে। কারণ এ সফরে বাংলাদেশে ইতালীয় উদ্যোক্তাদের নতুন বিনিয়োগের সন্ধান, ইতালিতে আরও বিভিন্ন পণ্য রফতানি এবং দক্ষ জনশক্তি রফতানির ক্ষেত্র অনুসন্ধান করার প্রয়াস চালানো হবে। এ সফরকালে জনশক্তি রফতানির বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে। ইতালির রোমের ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে অবতরণ করলে ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে পার্কো দেই প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পা-তে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি ইতালির রাজধানীতে সফরকালে এখানে অবস্থান করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার বিকেলে ইতালিয়ান প্রধানমন্ত্রীর সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করার আগে সকালে ভিয়া ডেল আন্তারতিদ এলাকায় রোমে বাংলাদেশ সরকারের ক্রয়কৃত নিজস্ব দূতাবাস ভবনের উদ্বোধন করবেন। এরপর শেখ হাসিনা ৬ ফেব্রুয়ারি সকালে পোপ ফ্রান্সিসের সাথে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। তারপরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুপুর ১২ টা ৫০মিনিটে ট্রেনে করে মিলান শহরের উদ্দেশে যাত্রা করবেন এবং স্থানীয় সময় বিকেল চারটায় মিলান সেন্ট্রাল ষ্টেশনে পৌঁছাবেন। প্রধানমন্ত্রীর এটি দ্বিতীয় বারের মত মিলান সফর এবং এটি ব্যক্তিগত সফর তার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৭ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় সময় দুপুর ১ টা ৪০ মিনিটে আমিরাতের ফ্লাইটে মিলান মালপেন্সা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবার কথা রয়েছে। তিনি দুবাই হয়ে ৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা ১০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবেন।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.