বাংলাদেশে করোনাভাইরাস দায়ভার শুধুই ইতালি ফেরত প্রবাসীদের?

(Last Updated On: March 21, 2020)

তামিম হাসান: করোনাভাইরাস পৃথিবীর সকল দেশে ছড়িয়ে এখন বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। ইদানীং ফেসবুক এবং বিভিন্ন মাধ্যম থেকে দেখতে পাচ্ছি সাধারন জনগন থেকে শুরু করে এমনকি সরকারি আমলারাও দোষারোপ করছেন শুধুমাত্র ইতালিফেরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের। ইতালি থেকে প্রবাসী বাংলাদেশীরা না আসলে হয়তবা করোনাভাইরাস এভাবে বিস্তার লাভ করতো না।

ইতালি ফেরত প্রবাসীদের দোষারোপ করার আগে সরকারি দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের বলতে চাই, গত পরশুদিন বিভিন্ন দেশ থেকে বহু প্রবাসী বাংলাদেশীরা দেশে ফেরত এসেছেন তো আপনারা কি পদক্ষেপ নিয়েছেন এই করোনাভাইরাস সংক্রমন রোধে? আপনারা জানেন বাংলাদেশ অতি ঘনবসতিপূর্ণ একটি দেশ, এই দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমন বিস্তারে খুব একটা সময় লাগবে না। এই বিষয়টি জানার পরেও আপনারা প্রশাসনের কর্মকর্তারা আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ করেননি। মিডিয়াতে এমন ছবিও দেখেছি সিলেটের মেয়র লন্ডন থেকে এসে সেলফ আইসোলেশন বাদ দিয়ে বুক ফুলিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতালি ফেরত প্রবাসী বাংলাদেশীরা বাংলাদেশে এসেছেন খুব বড় অন্যায় করে ফেলেছেন। এয়ারপোর্টে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে সেটার জন্য আমরাও আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। যে ভাবে বাজে ভাষার ব্যাবহার করা হয়েছে তা হয়তবা আমাদের মতো প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য বিব্রতকর। যারা এসেছেন তাদের আসাটাও উচিত হয়নি। কেননা আমাদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থে স্পষ্টভাবে বলা আছে যখন কোথাও মহামারী হবে যদি কেউ সেখানে থাকেন তাহলে সেখানেই যাতে অবস্থান করেন অথবা সেই স্থানে কেউ যাতে গমন না করেন। সরকার করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কোন পূর্ব ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। তার ফলে সব দোষ শুধু ইতালি প্রবাসীদের উপর চাপানো হচ্ছে কেন? শুধুই কি ইতালি থেকেই প্রবাসীরা বাংলাদেশে এসেছেন?

গত পরশুদিন সৌদি আরব থেকে বহু প্রবাসী বাংলাদেশে এসেছেন। সৌদি আরবেও কিন্ত করোনাভাইরাস হানা দিয়েছে। তাদের কথা সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা একটি বার বলছেন না। বাংলাদেশ কি এমন পূর্ব ব্যবস্থা গ্রহন করেছিলো? কিছুই না। কিছু হলে সবাই প্রবাসীদের গালাগালি করেন। বিদেশ ফেরত এক প্রবাসী ভাই যখন বাংলাদেশ এয়ারপোর্টে আসে তখন এয়ারপোর্টের কর্মকর্তারা কেমন ব্যবহার করেন সেটা আমরা হয়তবা ভালো করেই জানি। বাংলাদেশের রেমিট্যান্স অর্জনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এই প্রবাসীরা। অথচ এয়ারপোর্টে যেভাবে প্রবাসীদের সাথে বাজে আচরন করা হয় সেটি নিয়ে কেউ কোন কথা বলে না বলবেও না। অনেকেই বলতে পারেন এত দেশপ্রেম তাহলে দেশে আসছেন কেন এই অবস্থায়? উদাহরন হিসেবে আমার কথাই বলি আমি আমার বাবা মার একমাত্র সন্তান আল্লাহ না করুক আমার বাবা মা যদি অসুস্থ হয় তাহলে আমি যেভাবেই হোক দেশে যাওয়ার চেষ্টা করবো। কারন আমার পৃথিবীতে সবার আগে আমার বাবা মা। হয়তবা এমন অনেক জরুরি কারনে বাংলাদেশে গিয়েছেন। কিন্ত যারা বিনা কারনে বাংলাদেশ ভ্রমন করেছেন তারা অন্যায় করেছেন। তবে শুধুমাত্র ইতালি প্রবাসী বলে ফলাও করে প্রচার করবেন না। বিভিন্ন দেশ থেকে এখনো বিমান যাচ্ছে। সেখানেও প্রবাসী বাংলাদেশীরা আছেন। আমি আশা করবো যারা বিনা কারনে এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ভ্রমন করেছেন তারা কাজটা ভালো করেননি। অন্যদিকে সরকার এবং মিডিয়ার উচিত শুধুমাত্র ইতালিফেরত বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা না করা। আমি অন্তত একটি অনুরোধ করবো আমরাও বাংলাদেশি সুতরাং আমাদের মতো প্রবাসী বাংলাদেশীদের এভাবে গালি দিবেন না। আমরা আপনাদের ভাই বোন অথবা আত্মীয়। লেখক : তামিম হাসান অস্ট্রিয়া প্রবাসী

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.