সর্বশেষ সংবাদ

বাংলাদেশসহ ১৩ দেশ থেকে ইতালিতে প্রবেশ নিষিদ্ধ

(Last Updated On: July 13, 2020)

ইতালির স্বাস্থ্য মন্ত্রী রবের্তো স্পেরান্সা আজ বৃহষ্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেলে যে নতুন অধ্যাদেশে স্বাক্ষর করেছেন তাতে বাংলাদেশ সহ মোট ১৩টি দেশে যারা বিগত ১৪ দিনে অবস্থান করেছেন তাদের ইতালিতে প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের সরকারি সিদ্ধান্তের কথা বলেছেন। দেশসমূহ হচ্ছে আর্মেনিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, ব্রাজিল, বসনিয়া হার্জেগোভিনা, চিলি, মেসিডোনিয়া, মলদোভা, ওমান, পানামা, পেরু, কুয়েত এবং ডোমেনিকান প্রজাতন্ত্র।

উপরোক্ত ১৩টি দেশে যারা বিগত ১৪ দিনে অবস্থান করেছেন তারা ইতালিতে ট্রানজিটও নিতে পারবেন না, এটাও পরিষ্কার করা হয়েছে নতুন অধ্যাদেশে। স্বাস্থ্য মন্ত্রী আরও জানান,”ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং শেনগেনের বাইরের অন্য সব দেশ থেকে যারা ইতালি আসবেন তাদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন বহাল থাকবে। বিশ্বব্যাপী মহামারি সবচেয়ে তীব্র পর্যায়ে থাকায় সাম্প্রতিক মাসগুলিতে আমাদের যাবতীয় ত্যাগ মূল্যহীন করে তুলতে পারি না আমরা”।

নতুন অধ্যাদেশের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ইতালি সরকার সুনির্দিষ্ট কোন দেশের নাগরিকদের জন্য ইতালি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি, এটি পরিষ্কার করেছে। তবে কতো সময়ের জন্য নতুন এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবেন উপরোক্ত ১৩টি দেশে বিগত ১৪ দিনে অবস্থান করা নাগরিকেরা তা আজকালের মধ্যেই নিশ্চিত হওয়া যাবে।

🇮🇹 মাঈনুল ইসলাম নাসিম, ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক।

বুধবার কাতার এয়ারওজের পৃথক ফ্লাইটে রোম ও মিলানে আসা ১৫২ বাংলাদেশী যাত্রীকে বিমানবন্দর থেকেই ফিরতি ফ্লাইটে ফেরত পাঠানো হয়েছে ।

আজ ইতালিতে মৃত্যু ১২ , আক্রান্ত ২২৯

জালাল হাওলাদার,  ইতালিতে ২৪ ঘন্টায় করোনাভাইরাসে প্রানহানী ১২ (গতকাল ১৫)জনের। মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৩৪ হাজার ৯২৬ জন। আক্রান্ত (সম্ভাব্য) হয়েছে ২২৯ (গতকা ১৯৩)।

আইসিইউতে রোগীর সংখ্যা ৬৯ (গতকাল ৭১) জন ।

ইতালিতে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ১লাখ ৯৩ হাজার ৯৭৮জন রোগী সুস্থ হয়েছেন। আজ সুস্থ হয়েছেন ৩৩৮ জন।

আক্রান্তের সংখ্যা চিকিৎসাধীন (পজিটিভ) ১৩ হাজার ৪৫৯ জন, এদের মধ্যে ৮৭১ জন হাসপাতালে এবং ১২ হাজার ৬২৫ জন নিজ আবাসে চিকিৎসাধীন (হোম আইসোলেশনে) রয়েছেন।

সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ২লাখ ৪২ হাজার ৩৬৩ জন (মৃত্যু ,আক্রান্ত ও সুস্থ) ।এই ভাইরাসে এই নিয়ে ১৬৩চিকিৎসক এবং ৪১ নার্সের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে এ পর্যন্ত ২০ হাজার জন স্বাস্থ্য বিভাগের লোক আক্রান্ত হয়েছে।

অবসরপ্রাপ্ত ডাক্তার,নার্সও এম্ন্বুলেন্স কর্মি স্বাস্থ্যসেবারব্রতে মাঠে নেমেছে।সরকারের এই বিচক্ষণতা প্রশংসনীয়।

ইতালির ২০ অঞ্চলের মধ্যে লোম্বারদিয়ায়ই করোনার আঘাত সবচেয়ে বেশী (মিলান, বেরগামো, ব্রেসিয়া, লদি, ক্রেমনাসহ ১১টি প্রদেশ)আজ এ অঞ্চলে মারা গেছে  ১২ জন ,মত্যুর সংখ্যা বেড়ে ১৬ হাজার ৭১২ জন ,মোট আক্রান্ত ৯৪ হাজার ৫৫৭ জন (মৃত্যু ,আক্রান্ত ও সুস্থ)।

সূত্রঃ লা রিপুবলিকা।

বিশ্বে করোনা ভাইরাস  http://www.worldometers.info/coronavirus/

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.