প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন, তুমি(লিটন) রাতের না দিনের কমিটির

(Last Updated On: নভেম্বর ৩০, ২০১৬)

বিজয় দাশ ঃ গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হাঙ্গেরির বুদাপেস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাথে ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় সভাপতি অনুষ্ঠিত হয় । বিভিন্ন দেশের কমিটি নিয়ে জটিল থাকায় ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সিদ্ধান্ত দেন কেউ পদবী নয় ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে বক্তব্য রাখবে কিন্তু ফ্রান্স আওয়ামী লীগের মহসিন উদ্দিন খাঁন লিটন নিজেকে সভাপতি হিসেবে বক্তব্য দিতে শুরু করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন তুমি কোন কমিটি রাতের কমিটি না দিনের কমিটি ?  তখন হল ভর্তি লোক চিৎকার করে বলেন নেত্রী রাতের কমিটি । তখন আওয়ামী লীগ সভানেত্রি শেখ হাসিনা মহসিন উদ্দিন খাঁন লিটনকে বসিয়ে দেন ।

এ থেকে পরিস্কার যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফ্রান্স আওয়ামী লীগের সব কিছুই অবগত । উল্লেখ্য যে ৮ মে সম্মেলন পন্ডের পর রাতের অন্ধকারে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামানের প্রভাবে চাপে পরে ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল দাশ গুপ্ত ও সাধারণ সম্পাদক এম এ গনি সিনিয়রদের মতমত না নিয়ে দু সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী মহসিন উদ্দিন খাঁন লিটন কে সভাপতি ও দিলওয়ার হোসেন কয়েছ কে সাধারণ সম্পাদক করে একটি বিতর্কিত কমিটি করা । পরে একাধিক বার অনিল দাশ গুপ্ত ও এম এ গনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন ব্ল্যাকমেল করে কমিটি ঘোষনা করা হয় ।

পরে সিনিয়র নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী সাথে দেখা করলে তিনি পুনরায় সম্মেলন করতে নির্দেশনা দেন যার ফলশ্রুতিতে ১৮ সেপ্টেম্বর সম্মেলনের মাধ্যমে এম এ কাশেম কে সভাপতি ও মুজিবুর রহমান মুজিব কে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি ঘোষনা করে পরে পুর্নাঙ্গ কমিটি করা হয় । কিন্তু এনামুল হক ও আবদুল্লাহ আল বাকীর ইন্ধনে লিটন – কয়েছ কমিটি কার্যক্রম চালিয়ে যান । পরবর্তী ঢাকা সম্মেলনের সময় ফ্রান্স আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বেনজির আহমেদ সেলিম ও নাজিম উদ্দিন আহমেদ , সভাপতি এম কাশেম ও সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান কে পরিচয় করাতে গনভবনে গেলে প্রধানমন্ত্রী সেলিম কে বলেন আপনি ও নাজিম উদ্দিন মিলে করলে ঠিক আছে । প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত না মেনে লিটন – কয়েছ নিজেদের বৈধ কমিটি বলে প্রপাগান্ডা চালাতে থাকে । ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ সভাপতি অনিল দাশ গুপ্ত ও সাধারণ সম্পাদক এম এ গনি প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব জেনেই কাশেম – মুজিব কমিটি কে মেনে নিয়েছেন ।

বিশেষ সুত্রে জানা যায় মহসিন খাঁন লিটন কে সাধারণ সম্পাদক করতে একটি মহল মরিয়া । আসলে লিটন ও চাচ্ছেন সিনিয়রদের সাথে দর কষাকষি করতে কিন্তু সিনিয়রা লিটনকে আর সাধারণ সম্পাদক করতে রাজী নন এখন চাইলে বড়জোর সহ-সভাপতি করতে পারেন যেহেতু তিনি বর্তমান কমিটিতে সদস্য পদে আছে যেমন টি কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিপ্লব বড়ুয়াকে সদস্য থেকে সহ দফতর সম্পাদক করা হয়েছে । কিন্তু কমিটির সদস্য নন এমন কেউ আর কমিটি তে আসার সম্ভাবনা নাই ।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.