কে এই মোহাম্মদ ইমতিয়াজ?

(Last Updated On: ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬)

বিবিসি বাংলা, শ্যামবর্ণ, দীর্ঘদেহী, স্বাস্থ্যবান, শ্মশ্রুমণ্ডিত মুখমণ্ডল এবং চোখে চশমা পড়া এক ব্যক্তি মোহাম্মদ ইমতিয়াজ।

তিনিই গত সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকার আশকোনায় সূর্য ভিলা নামক নবনির্মিত ত্রিতল ভবনটির নিচ তলার ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়েছিলেন।

বাড়িওয়ালার মেয়ে জোনাকি রাসেল তার কাছে ফ্ল্যাটটি ভাড়া দেন।

তিনিই বাড়িটির দেখভাল করেন। তার পিতা প্রবাসী।

জোনাকি রাসেল নিজে অবশ্য ওই বাড়িতে থাকেন না, তিনি থাকেন পাশেই তার শ্বশুরালয়ে।

সূর্য ভিলার তিন তলায় থাকেন তার মা এবং এক বোন।

বিবিসি বাংলার সঙ্গে আজ কথা হয়েছে মিসেস রাসেলের, তিনি মোহাম্মদ ইমতিয়াজের চেহারার এই বর্ণনা দিচ্ছেন এবং বলছেন, মি. ইমতিয়াজের স্ত্রী, চল্লিশ দিন বয়স্ক সন্তান এবং আরেক মহিলা – মোট চার জন থাকার কথা ফ্ল্যাটটিতে।

বাসা ভাড়া নেয়ার শর্ত হিসেবে সবার জাতীয় পরিচয়পত্র সরবরাহ করেন মি. ইমতিয়াজ, বলছিলেন মিসেস রাসেল।

এসব কাগজপত্র ও তাদের পূরণ করা ভাড়াটিয়া ফর্ম যথারীতি থানায় জমাও দেয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেন মিসেস রাসেল।

বাড়ি ভাড়া নেয়ার পর তারা যথাসময়ে বাসায় ওঠেন। কিন্তু কখনো খুব একটা বাইরে বের হতেন না।

“আমরা বলতাম, আপনি বের হন না কেন? উনারা হিজড়ার অজুহাত দিত সবসময়। বলতো ছোট বাচ্চা আছে, হিজড়ারা অনেক বিরক্ত করে। সামনের বাসা থেকেও নাকি তারা দশ হাজার টাকা নিয়ে গেছে”, বলছিলেন জোনাকি রাসেল।

“আমি যতবার গেছি তখন ছোট বেবি আর ওয়াইফটাই ছিল”।

যে কিশোরটি পুলিশী অভিযান বাসার মধ্যে নিহত হয়েছে, তাকে কখনো দেখেননি বলে জানান মিসেস রাসেল, এমনকি যে মহিলা আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে নিহত হয়েছে তাকেও তিনি দেখেননি।

তবে মোহাম্মদ ইমতিয়াজের সঙ্গে অনেকবারই দেখা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

“অনেক সময় ভাড়া নেয়ার জন্য যেতাম, তখন উনি দরজা খুলত। ভাড়াটা দিত। অনেক সময় পানি না থাকলে বলত, পানি নাই”।

কিন্তু শনিবারের অভিযানের পর ওই ভবনটিতে মারা যাওয়া বা গ্রেপ্তার হওয়া কারো মধ্যে জোনাকি রাসেলের বর্ণনা করা এই মোহাম্মদ ইমতিয়াজ নেই।

বোঝাই যাচ্ছে, সে ভাড়াটিয়া হিসেবে যে পরিচয়পত্র সরবরাহ করেছে সেটি জাল ছিল।

আর ওই ফ্ল্যাটটিকে বিভিন্ন সময় নিহত অভিযুক্ত জঙ্গিদের স্ত্রী ও সন্তানদের একটি আশ্রয়স্থল হিসেবে ব্যাবহার করা হত, যেটির ব্যবস্থাপনায় ছিল এই কথিত মোহাম্মদ ইমতিয়াজ ।

কিন্তু সে আসলে কে? আর কোথায়ই বা গেল? পুলিশ বলছে, সে পলাতক, তাকে খোঁজা হচ্ছে।

পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-কমিশনার মহিবুল ইসলাম বিবিসিকে বলছেন, গতকাল (শনিবার) যে দুজন মহিলাকে আটক করা হয়েছে আশকোনার ওই বাড়িটি থেকে, তাদের নিয়েই এই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

“আমরা যাকে খুঁজছি, নব্য জেএমবির আরেকজন নেতা, মুসা, সে-ই ইমতিয়াজ নাম নিয়ে বাসাটি ভাড়া নিয়েছিল”, বলছেন মি. ইসলাম।

এ ব্যাপারে কিছু গোয়েন্দা তথ্যও পুলিশের কাছে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেই তথ্যের ভিত্তিতেই এখন অভিযান চালানো হচ্ছে।

এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, শনিবারের অভিযানের সময় আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে এই অভিযুক্ত মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা এবং তাদের কন্যাও রয়েছে বলে পুলিশ এর আগে জানিয়েছে।

ভেতরে ৫টি গ্রেনেড
এখনও জঙ্গি আস্তানায় আদরের লাশ
রাজধানীর দক্ষিণখান থানার পূর্ব আশকোনার জঙ্গি আস্তানায় নিহত কিশোর জঙ্গি আদরের লাশ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

রোববার বেলা ১১টার পর থেকে ‘সূর্য ভিলা’ নামের ওই ভবনে কাজ শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস। দুপুর ১টা পর্যন্ত সেখানকার একটি কক্ষে আদরের লাশ রয়েছে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এক ব্রিফিংয়ে সোয়াট টিমের ডিসি প্রলয় জোয়ার্দার জানান, ফায়ার সার্বির একটি দল ভবনের ভেতরে ঢুকেছে। তারা কাজ করছে।

তিনি বলেন, ‘ভবনের একটি কক্ষে এখনও প্রবেশ করা সম্ভব হয়নি। কারণ অভিযানের সময় পুলিশের ছোঁড়া ক্যাদানে গ্যাস রুমে আটকে আছে। ওই রুমে জঙ্গি আদরের লাশ রয়েছে।’

প্রলয় জোয়ার্দার জানান, ভবনে আপাতত দৃশ্যমান ৫টি গ্রেনেড দেখা গেছে। দুটি খুবই বিপজ্জনক আর ২টি আত্মঘাতী গ্রেনেড।

জঙ্গিবিরোধী এ অভিযানের পর পূর্ব আশকোনা এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সকালে সেখানে গেছে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট, ক্রাইম সিন ইউনিট, সোয়াট টিম, সিআইডির ফরেনসিক ইউনিট ও ডিএমপির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট।

উল্লেখ্য, শনিবার রাজধানীর পূর্ব আশকোনার জঙ্গি আস্তানায় পুলিশি অভিযানের সময় আত্মঘাতী গ্রেনেড বিস্ফোরণ ও গুলিতে দু’জন নিহত হয়।

অভিযানের দিনই জঙ্গি সুমন ওরফে ইকবালের স্ত্রী শাকিলার (৩০) লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি শরীরে বেঁধে রাখা গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটালে মারা যান।

আর আজিমপুরে অভিযানের সময় নিহত জঙ্গি তানভীর কাদেরী ওরফে শিপারের ছেলে রাশেদ ওরফে আদর (১৪) গোলাগুলিতে নিহত হয়।

শুক্রবার রাত ১২টা থেকে শনিবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৭ ঘণ্টার এ অভিযানে আত্মসমর্পণ করে দুই শিশু সন্তানসহ দুই নারী। তারা হচ্ছে- সেনাবাহিনী থেকে বরখাস্ত হওয়া মেজর জাহিদ ওরফে মুরাদের স্ত্রী জেবুন্নাহার শিলা ও তার সন্তান (নাম অজ্ঞাত)। আরেকজন হচ্ছে জঙ্গি মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা ও তার সন্তান (নাম অজ্ঞাত)।

এছাড়া গ্রেনেড বিস্ফোরণে গুরুতর আহতাবস্থায় আস্তানার ভেতর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে সাবিনা নামের ৪ বছরের এক শিশুকে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সিটি) এ অভিযান পরিচালনা করে।

দক্ষিণখান থানার আশকোনায় হাজী ক্যাম্পের অদূরে কুয়েত প্রবাসী জামাল হোসেনের বাড়িতে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানটির নাম দেয়া হয়েছে ‘অপারেশন রিপল টোয়েন্টিফোর’।

১৭ ঘণ্টা অভিযানের পর শনিবার বিকাল ৫টায় সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। সন্ধ্যায় নিহত নারী জঙ্গির লাশ উদ্ধার করে ঢামেক মর্গে পাঠানো হলেও ভবনের ভেতরে বিস্ফোরক থাকায় আদরের লাশ উদ্ধার করা হয়নি।

রোববার নিহত জঙ্গি আদরের লাশ ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধারের কথা রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.