মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন

খালেদা জিয়াকে বিদেশ নিতে ’স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফখরুলের ফোন

নিউজ বাংলা
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১
  • ১৯৩ বার

রোনায় আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে তার দল ও পরিবার।

সোমবার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার।

উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারের অনুমতির বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন তারা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক নেতা নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওই নেতা জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কান্দার ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল টেলিফোনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তারা খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেয়ার বিষয়ে অনুরোধ করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই বিষয়ে সরকারের অন্যদের সঙ্গে আলাপ করে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত জানানোর আশ্বাস দিয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নেতা আরও বলেন, খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিতে সরকারের সঙ্গে প্রাথমিক যোগাযোগ করা হয়েছে। তবে এখনও চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তিনি বলেন, ‘আজকে (সোমবার) সন্ধ্যায় মির্জা ফখরুল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার সর্বশেষ অবস্থা জানান। একইসঙ্গে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিতে সরকারের অনুমতির বিষয়ে কথাও বলেন।’

এ বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বেগম জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইসকান্দার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মিডিয়াকে কোনো কমেন্ট দিই না

চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ সম্পর্কে আমি এখনও কিছু জানি না।’

খালেদা জিয়াকে বসুন্ধরার আবাসিক এলাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাকে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) স্থানান্তর করা হলেও স্বাভাবিকভাবেই শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছেন।

৭৬ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত। দণ্ড নিয়ে তিন বছর আগে তাকে কারাগারে যেতে হয়।

২০০৮ সালের ৮ মার্চ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয় খালেদার। পরে উচ্চ আদালত সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হয়। ওই বছরই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় তাকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা সংক্রমণ দেখা দেয়ার পর বিএনপি নেত্রীকে দেশের বাইরে না যাওয়া ও বাড়িতে বসে চিকিৎসা নেয়ার শর্তে ছয় মাসের জন্য দণ্ড স্থগিত করিয়ে মুক্তি দেয়া হয়। এরপর দুই দফা বাড়ানো হয় দণ্ড স্থগিতের মেয়াদ।

তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিতে এর আগেও একাধিকবার দল ও পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে অনুরোধ জানানো হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2021 DeshPriyo News
Designed By SSD Networks Limited
error: Content is protected !!