শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান বয়কট করলো সিলেট আওয়ামী লীগ

ইত্তেফাক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৮৬ বার
মেয়র ও বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরী সিসিকের পক্ষ থেকে মেয়র আরিফ পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন

সিলেট সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে সিলেটের ঐতিহাসিক রেজিস্টারি মাঠে বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) বিকেলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে বিদেশের বুকে বাংলাদেশের গৌরব সমুন্নত রাখা, সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প অনুমোদন ও সিলেটের উন্নয়নের বিশেষ অবদান রাখায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে সংবর্ধনার দেওয়া হয়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র ও বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরী। এর আগে সিসিকের পক্ষ থেকে মেয়র আরিফ পররাষ্ট্র মন্ত্রীর হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র ও বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরী বিভিন্ন সময় আওয়ামী বিরোধী বক্তব্য দেওয়ার অজুহাতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান বয়কট করেছেন সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের প্রতি খুব সদয়। সিলেটের উন্নয়নে বরাদ্দ দিতে তিনি দ্বিধা করেন না। না চাইতেও প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে অনেক কিছু পাচ্ছে সিলেট। সিলেট নগরীর উন্নয়নে এক হাজার ২২৮ কোটি টাকা দিয়েছে সরকার। সিলেটের যোগাযোগ ব্যবস্থা- রাস্তাঘাট উন্নত হচ্ছে। ঢাকা-সিলেট সড়ক ৬ লেন নির্মাণ কাজ চলছে, ওসমানী বিমানবন্দর অত্যাধুনিক হচ্ছে। স্বাস্থ্যখাতে ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে। শিক্ষাখাতে উন্নয়নের ক্ষেত্রে বৃহত্তর সিলেটের প্রত্যেকটি কলেজে বিশেষ অনুদান দেওয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে মডেল সিলেট গড়ে তোলা হচ্ছে।

মন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, টাকা শুধু পাইলেই হয় না। টাকা কাজে লাগাতে হয়। টাকা আগেও দিয়েছিলেন আমাদের অর্থমন্ত্রী। কিন্তু ফেরত গেছে। বর্তমান সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলররা টাকা কাজে লাগাচ্ছেন। যার ফলে সিলেটের উন্নয়ন হচ্ছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাকে কেউ কেউ বলেছেন, আজকের আয়োজন আরিফ করেছেন। আমি বলেছি, এ আয়োজন সিটি করপোরেশনের। বরং আপনাদের লজ্জা লাগা উচিত এই কারণে যে, প্রধানমন্ত্রী যে এত ভালো কাজ করছেন, একজন অন্য দলের লোক সেটি স্বীকার করছে। আপনাদেরতো ভালো লাগার কথা। আমি তো হলাম উসিলা মাত্র। তারা আমাকে নয়, সম্মান দিচ্ছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে।’

সিলেটের উন্নয়নে মিলেমিশে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে মোমেন বলেন, এই সিলেট নগরী আপনার-আমার সবার। কে কোন মতের- দলের সেটা বিষয় নয়। আমরা সবাই সিলেটের- এটাই মূল বিষয়। এখানের ছেলে আমি। আমাদের সবার হৃদয়ে সিলেট। আমার কাছে কেউ কেউ বলেন যে, মেয়র অন্য দলের। সুতরাং আপনি উনার অনেক প্রস্তাব গ্রহণ করবেন না। আমি বলি- সিলেটতো আমারও। মেয়র সাহেবরও। সুতরাং বৃহত্তর সিলেটের মঙ্গলের জন্য সব করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2021 DeshPriyo News
Designed By SSD Networks Limited
error: Content is protected !!